ফুলগাজী প্রতিনিধি->>

ফুলগাজী উপজেলার জিএম হাট ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান সৈয়দ জাকির হোসেন রতনের দায়িত্ব গ্রহণ অনুষ্ঠান বর্জন করেছেন ১০ সদস্য। নিজে দাওয়াত না দিয়ে সচিবের মাধ্যমে দায়িত্ব গ্রহণ অনুষ্ঠানের দাওয়াত দেওয়ায় এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানান অনুষ্ঠান বর্জনকারী ইউপি সদস্যরা।

মঙ্গলবার বিকেল ৩টায় ফেনী জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে জিএম হাট ইউনিয়নসহ ফুলগাজীর ৬টি ইউনিয়ন পরিষদের নবনির্বাচিতদের শপথবাক্য পাঠ করানো হয়।

জানা যায়, মঙ্গলবার বিকেল পাঁচটায় একটি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে জি এম হাট ইউনিয়ন চত্বরে দায়িত্ব গ্রহণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে ইউনিয়ন আওয়ামী গের সাধারণ সম্পাদক মাঈন উদ্দিনের সভাপতিত্বে, ফুলগাজী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আবদুল আলিম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউনও) ফেরদৌসি বেগম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুলতানা নাসরিন কান্তা প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। তবে অনুষ্ঠানে একজন পুরুষ সদস্য ও একজন সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডের সদস্য ব্যতীত, বাকি ১০ জন ইউপি সদস্য অনুষ্ঠান বয়কট করেন। এ সময় তাঁরা নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান সৈয়দ জাকির হোসেন রতনকেও বর্জন করেছেন বলে জানান।। এ ছাড়া দায়িত্ব গ্রহণ অনুষ্ঠানে সাবেক চেয়ারম্যানের ইউপি চেয়ারম্যান ও সদ্যবিদায়ী চেয়ারম্যান মো. মুজিবুল হক উপস্থিত ছিলেন না।

ইউনিয়ন পরিষদের সূত্রে জানা যায়, ১০ জন ইউপি সদস্য তারা একযোগে এককভাবে, চেয়ারম্যানের দায়িত্ব গ্রহণ অনুষ্ঠান বর্জন করেছেন। এমনকি তাঁরা অনুষ্ঠানে উপস্থিতও হননি।

জিএম হাট ২ নম্বর ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য ইকবাল হোসেন লিপু বলেন, ‘তিনি চেয়ারম্যান হিসেবে ইউপি পরিচালনা করার মতো যোগ্যতা রাখেন না। আমরা তাঁর পরিষদের সদস্য, অথচ আমাদের নিজে দাওয়াত না দিয়ে অন্যের মাধ্যমে দাওয়াতের ব্যবস্থা করেন। আমরা আটজন সাধারণ সদস্য ও ২ জন সংরক্ষিত মহিলা সদস্য একযোগে অনুষ্ঠান এবং তাঁকে বর্জন করেছি।

৪ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য নুরুল আমিন বলেন, ‘আমরা জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত হয়েছি। সে তার পরিবারের লোকজনকে দাওয়াত দিয়ে আজকে অনুষ্ঠান সফল করতে চেয়েছে। আমরা একজন সচেতন ব্যক্তি হিসেবে তাঁকে চেয়ারম্যান হিসেবে মেনে নিতে পারি না। তাঁর দায়িত্ব গ্রহণ অনুষ্ঠানে আমাদের এই ইউনিয়ন পরিষদের চারবারের নির্বাচিত সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মো. মুজিবুল হক দায়িত্ব হস্তান্তর করতে আসেননি।’

অভিযুক্ত জি এম হাট ইউনিয়ন পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান সৈয়দ জাকির হোসেন বলেন, ‘দাওয়াতের একটু সমস্যার কারণে এই ঘটনাটা ঘটেছে। সচিবের মধ্যমে দাওয়াত দিয়েছিলাম। তাই হয়তো তাঁরা অনুষ্ঠানে আসেননি। এখানে বর্জনের কিছু নেই।’

Sharing is caring!