পরশুরাম প্রতিনিধি->>

ফেনী শহরে গরু ব্যবসায়ীকে গুলি করে হত্যা মামলার আসামি কালামের সহযোগি আশরাফ হোসেন রাজুকে (২৩) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। পরশুরামের বিলোনিয়া স্থলবন্দর এলাকা থেকে মঙ্গলবার ভোরে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। মঙ্গলাবর দুপুরে তাকে আদালতে তোলে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। আদালত তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে।

আসামী আশরাফ হোসেন রাজু ফেনী পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ড মধ্যম বিরিঞ্চি এলাকার মফিজ মেম্বার বাড়ির ইসমাইল হোসেন দুলাল এর ছেলে। আসামী রাজু খুনি কালামের ভাতিজা।

পরশুরাম মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মু. খালেদ হোসেন জানায়, হত্যা ঘটনার দুই মাস পর মঙ্গলবার ভোরে ফেনীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) থোয়াই অংপ্রু মারমার নেতৃত্বে পরশুরাম থানা পুলিশের সহযোগিতায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে পুলিশের একটি দল। এসময় পরশুরামের ভারতীয় সীমান্তবর্তী এলাকার বিলোনীয়ার তালুকপাড়া কাউন্সিলর কালামের মামার বাড়ি থেকে রাজুকে গ্রেপ্তার করে।

জানা যায়, গত ১৬ জুলাই (শুক্রবার) চাঁদা না দেয়ায় ফেনীর সুলতানপুরে শাহজালাল নামে এক গরু ব্যবসায়ীকে গুলি করে হত্যা করে ফেনী পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম ও তার তিন সহযোগী। ওই ঘটনায় ফেনী মডেল থানায় তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা করে নিহত শাহজালালের পরিবার। পরে পুলিশ ওই ঘটনায় সগর নামে একজনকে আটক করলেও অপর আসামীরা আত্মগোপনে চলে যায়।

পুলিশ সূত্র জানায়, আসামী গত ১৬ জুলাই (শুক্রবার) গরু ব্যবসায়ী শাহজালালকে গুলি করে হত্যা মামলায় কাউন্সিলর কালামকে প্রধান আসামী করে ফেনী মডেল থানায় তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন নিহত গরু ব্যবসায়ী শাহজালাল পরিবার। মামলার প্রধান আসামী কাউন্সিলর আবুল কালাম ও তার সহযোগী ও ভাতিজা আশরাফ হোসেন এসময় আত্মগোপনে চলে যান।

উল্লেখ্য: গরু ব্যবসায়ী শাহজালাল ১৫টি গরু বিক্রির জন্য গত ১৬ জুলাই ফেনীর সুলতানপুরে চাচাতো ভাই আল আমীন বাড়ির সামনে রাখে। এসময় তার কাছে চাঁদা চেয়ে না পেয়ে গরুগুলো ছিনতাই করতে স্থানীয় কাউন্সিলর আবুল কালামসহ তার তিন সহযোগী অস্ত্র নিয়ে ব্যবসায়ী শাহজালালকে জিম্মি করে। পরে শাহজালালের চাচাতো ভাই আল আমীন বের হয়ে আসলে তাকেও মারধর করে সন্ত্রারীরা। এক পর্যায়ে আল আমীনের স্ত্রী সুমি অনেক অনুরোধ করলে তারা চলে যায়। ঘটনাটি জানাজানি হলে কাউন্সিলরসহ তার সহযোগীরা মোটরসাইকেলে শাহজালালকে তুলে নিয়ে গুলি করে হত্যা করে জমিতে মৃতদেহ ফেলে রেখে যায়। সকালে পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ফেনী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। ওই ঘটনায় জড়িত থাকায় ঘটনার দিনই সাগর নামে একজনকে আটক করে পুলিশ।

Sharing is caring!