নিজস্ব প্রতিবেদক->>

ফেনীতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ও উপসর্গ নিয়ে আরও তিনজন মারা গেছেন। তাঁদের মধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়ে দুজন এবং এর উপসর্গ নিয়ে একজনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে জেলায় নতুন করে ২৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। জেলা সিভিল সার্জন রফিক-উস সালেহীন এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

গতকাল সোমবার থেকে আজ মঙ্গলবার পর্যন্ত নোয়াখালীর আবদুল মালেক উকিল মেডিকেল কলেজের আরটি–পিসিআর ল্যাব, জিন এক্সপার্ট ও র‍্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্টে ২৮২ জনের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। নমুনা পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ৯ দশমিক ২১।

নতুন শনাক্ত ব্যক্তিদের মধ্যে ফেনী সদর উপজেলায় আট, দাগনভূঞায় ছয়, সোনাগাজীতে এক, ফুলগাজীতে তিন এবং ছাগলনাইয়া ও পরশুরামে চারজন করে আছেন। এখন পর্যন্ত জেলায় মোট ১০ হাজার ৪৮৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। সুস্থ্ হয়েছেন ৮ হাজার ৯৩৭ জন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১৪৩ জন।

জেলায় চলতি মাসের প্রথম ১৪ দিনে ৩ হাজার ৩১৩ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৩৭৩ জন করোনা পজিটিভ হয়েছেন। শনাক্তের হার ১১ দশমিক ২৫। এ সময়ে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৯ জন ও উপসর্গ নিয়ে ১৭ মারা গেছেন। গত আগস্ট মাসে ১১ হাজার ৫৯৯ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২ হাজার ৪০৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল। আক্রান্তের হার ছিল ২০ দশমিক ৭৬ শতাংশ। ওই মাসে করোনায় ৩৫ জন ও এর উপসর্গ নিয়ে ১০৮ জনের মৃত্যু হয়।

গত জুলাইয়ে ৮ হাজার ৯৯২ জনের নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে ৩ হাজার ২৪৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল। শনাক্তের হার ছিল ৩৬ দশমিক ১০। গত দুই মাসের তুলনায় চলতি মাসে সংক্রমণের হার ও মৃত্যু দুটোই কমেছে।

ফেনী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) মো. ইকবাল হোসেন ভূঁঞা জানান, হাসপাতালের কোভিড ডেডিকেটেড ইউনিটে বর্তমানে ৪৯ জন রোগী ভর্তি আছেন। তাঁদের মধ্যে ১৫ জন করোনায় আক্রান্ত ও বাকিরা করোনার উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

এদিকে বর্তমানে জেলার বিভিন্ন হাসপাতালে ৩২ জন করোনায় আক্রান্ত রোগী চিকিৎসাধীন। এর মধ্যে ফেনী জেনারেল হাসপাতালে ১৫, দাগনভূঞা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১৪, পরশুরাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৩ রোগী ভর্তি। এ ছাড়া ১ হাজার ৩৪১ জন করোনা শনাক্ত রোগী বাড়িতে আইসোলেশনে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

Sharing is caring!