শহর প্রতিনিধি->>

ফেনীতে রাস্তায় পড়ে থাকা নবজাতককে পাহারা দিচ্ছিলো কুকুর। সোমবার ভোরে শহরের শহীদ সেলিনা পারভীন সড়ক এলাকায় কাঁথা দিয়ে মোড়ানো একটি নবজাতককে (মেয়ে) শিশুকে উদ্ধার করেছে স্থানীয় এক নারী। শিশুটিকে উদ্ধারের সময় কান্না করছিলো নবজাতকটি। এসময় শিশুটির পাশে দুটি কুকুর পাহারা দিচ্ছিলো।

প্রত্যক্ষদর্শী নিলু বেগম জানান, তিনি ভোর তিনটায় সাহরি খাওয়ার উদ্দেশ্য উঠার পর বারান্দা থেকে শিশুর কান্না ও জোরে কুকুরের হাঁকডাক শুনতে পান। পরে এলাকার প্রহরীরা এগিয়ে আসালে নিলু বেগম ঘটনাস্থলে গিয়ে নবজাতকটিকে উদ্ধার করে নিজের বাসায় নিয়ে যায়।

তিনি আরও জানান, নবজাতকটিকে কে বা কারা ফেলে গেছে সে বিষয়ে এখনো কোনো তথ্য পাওয়া না গেলেও উদ্ধারের সময় ২টি কুকুর নবজাতকটিকে অনেকক্ষণ পাহারা দিচ্ছিলো।

এদিকে সকালে ফেনীর স্থানীয় একটি ফেসবুক গ্রুপে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক নারীর পোস্টের সূত্র ধরে খোঁজ পাওয়া যায় শহীদ সেলিনা পারভীন সড়কের সোনাপুর কটেজের ৫মতলায় ভাড়াটিয়া নিলু বেগমের বাসায় নবজাতকটি রয়েছে। খবর পেয়ে সোনাপুর কটেজের মালিক সফিকে জানানো হলে তিনি নবজাতকটির ব্যাপারে ফেনী মডেল থানায় অবহিত করেন। পরে মডেল থানা থেকে বিষয়টি জেলা প্রশাসককে জানালে তিনি নবজাতকটিকে শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানোর পরমর্শ দেন।

জেলা সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক রফিকুল ইসলাম ও শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. আজিজুল রহমান পরীক্ষা-নিরীক্ষা নবজাতকটি সুস্থ আছে বলে জানান। পরে

জেলা প্রবেশন অফিসার আলা উদ্দিন বলেন, নবজাতকটির দেখভালের জন্য ফেনীর স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সহায় এর তত্ত্বাবধানে দেন জেলা শিশু বোর্ড।

সহায় সংগঠনের সভাপতি মঞ্জিলি আক্তার মিমি বলেন, নবজাতকটিকে দেখাশুনা করার জন্য আমাদেরকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আমরা নবজাতকটির দেখভাল করছি। সে এখন সুস্থ আছে।

ফেনী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. নিজাম উদ্দিন জানান, নবজাতক উদ্ধারের ঘটনাটি আমারা জেনেছি। নবজাতকটিকে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সহায়ের তত্ত্বাবধানে রাখা হয়েছে। তবে নবজাতকটি কারা ওই স্থঅনে ফেলে গেছে পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করছে।

Sharing is caring!