শহর প্রতিনিধি->>

দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম রপ্তানি পণ্য চামড়া শিল্প রক্ষায় ফেনীতে মানববন্ধন করেছে ইশা ছাত্র আন্দোলনের সদস্যরা। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে রোববার বিকেলে ফেনী শহরের ট্রাংক রোড কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্ত্বরে মানববন্ধনে প্রধান অতিথি ছিলেন ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন কেন্দ্রীয় সভাপতি নূরুল করীম আকরাম।

ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন ফেনী জেলার সভাপতি এইচ এম আবু রায়হান এর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এম এম হাবিবুর রহমান এর সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ফেনী জেলা শাখার সভাপতি প্রিন্সিপাল মাওঃ নূরুল করীম, সিনিয়র সহ সভাপতি মাওঃ গাজী এনামুল হক ভূঁইয়া, ইসলামী যুব আন্দোলন ফেনী জেলা সভাপতি মাওঃ সালাহ উদ্দিন আইয়ূবী, ইশা ছাত্র আন্দোলন ফেনী জেলা অর্থ ও কল্যাণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান বেলালী।

“চামড়া শিল্প রক্ষায় সরকারের কার্যকরী ভূমিকা পালনের দাবিতে” অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, “সরকারের খামখেয়ালীপনায় ‘চামড়া শিল্প’ আজ হুমকির মুখে।
বিদেশে এক সময় বাংলাদেশের পাটজাত পণ্যের ব্যাপক চাহিদা ছিল। সরকার ও বেসরকারি উদ্যোক্তাদের সমন্বয়হীনতার কারণে এ শিল্প প্রায় ধ্বংস হয়ে হিমাগারে জায়গা নিয়েছে। এ দেশের কৃষিজাত পণ্যও সরকারের অব্যবস্থাপণার কবলে পড়েছে। ধানের ন্যায্য মূল্য না পেয়ে পাকা ধানে আগুন দেওয়ার গল্পও ঢের আছে।
প্রায় একইভাবে চামড়াজাত পণ্য বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম রপ্তানি পণ্য হওয়া সত্ত্বেও সরকার ও পুঁজিপতিদের কারসাজিতে শিল্পটি বিপন্ন হতে চলেছে। বিদেশেও রপ্তানি কমেছে। এভাবে চলতে থাকলে আলোর মুখ দেখানো চামড়া শিল্প খাতকেও পাট শিল্পের মতোই মুখ থুবড়ে পড়তে হবে।”

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্যানুযায়ী গত ২০১৪-১৫ অর্থ বছর থেকে ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে চামড়া শিল্প থেকে প্রতি বছর বাংলাদেশ গড়ে রপ্তানি আয় ১১৫ কোটি ডলার (যার বাংলা টাকার পরিমান ৮৮৮০ কোটি) প্রায়। কিন্ত ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে সে আয় কমে দাঁড়ায় ৮৩ কোটি ডলারে। এক্ষেত্রে আয় কমেছে ৯ দশনিক ২৭ শতাংশ।

Sharing is caring!