ছাগলনাইয়া প্রতিনিধি->>

ছাগলনাইয়া উপজেলায় প্রকট হয়ে উঠছে আওয়ামী লীগের ঘরের কোন্দল। সম্প্রতি মহামায়া ইউনিয়নের সভাপতি-সম্পাদক মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছেন। দু’জন পরস্পরের বিরুদ্ধে যেভাবে বিষোদগার করছেন, যে কোনো সময় দু’পক্ষের মধ্যে বড় ধরনের সংঘর্ষ বাধতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন ইউনিয়নবাসী ও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা।

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহজাহান মিনু একদিন আগে একটি ফেসবুক আইডিতে লাইভ সাক্ষাৎকারে তারই কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও মহামায়া ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক গরীব শাহ হোসেন চৌধুরী বাদশার বিরুদ্ধে মাদক সংশ্নিষ্টতা ও দলের বিপক্ষে কাজ করার অভিযোগ করেন।

আধঘণ্টাব্যাপী দেওয়া এই লাইভ সাক্ষাৎকারে সভাপতি মিনু ইউনিয়ন চেয়ারম্যান বাদশা চৌধুরীর বিরুদ্ধে দলের বিপক্ষে কাজ করার অভিযোগ আনেন।

এছাড়া মিনু অভিযোগ করেন, চেয়ারম্যান ও সাধারণ সম্পাদক বাদশা চৌধুরীর পরিবারের কোনো ব্যক্তি আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত নেই। এর পরই ইউপি চেয়ারম্যান ও সাধারণ সম্পাদক বাদশাহ চৌধুরী মিনুর বক্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ জানান।

সাংবাদিকদের কাছে দেওয়া এক চিঠিতে তিনি বলেন, তিনি প্রতিনিয়ত মাদকের বিরুদ্ধে বক্তব্যসহ মাদকসেবী ও বিক্রেতাদের ধরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে তুলে দেন। সভাপতি মিনু মাদকসংশ্নিষ্টদের থেকে কমিশন নেন বলে তার গাত্রদাহ হচ্ছে। মিনুর বিরুদ্ধে মামলা করবেন বলেও হুশিয়ারি দেন তিনি।

বাদশা চৌধুরী বলেন, তার পরিবার আওয়ামী লীগ পরিবার। তার ভাই মোতালেম শাহ জেলা ছাত্রলীগের ১৫ বছর ধরে সহসভাপতি পদে রয়েছেন।

এ ব্যাপারে ইউনিয়ন সভাপতি শাহজাহান মিনু জানান, বাদশা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ৫ বছরের বেশি সময় চেয়ারম্যান থাকা অবস্থায় দলীয় লোকদের কোনো মূল্যায়ন করেননি। তার মাদক-সংশ্নিষ্টতার কথা তিনি পুনর্ব্যক্ত করেন।

ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক ও মহামায়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান গরীবশাহ হোসেন চৌধুরী বাদশা জানান, মিনু নিজে মাদকের গডফাদার। চেয়ারম্যান হিসেবে তার জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে তিনি পাগলের প্রলাপ বকছেন।

Sharing is caring!