লাইফস্টাইল ডেস্ক->>

এ ফলটি পুষ্টিগুণে ভরপুরে এ জন্য এটি খাওয়া পর কিছুটা সাবধানতা অবলম্বন দরকার। আমে প্রচুর পরিমাণে ক্যারোটিন, ভিটামিন বি, ভিটামিন সি, আয়রন, ক্যালসিয়াম ও খনিজ লবণসহ শরীরের প্রয়োজনীয় বিভিন্ন পুষ্টি উপাদান রয়েছে। তবে আম খাওয়ার পরে যেসব খাবার খেলে আপনি স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়তে পারেন।
চলুন সেটি জেনে নেওয়া যাক।

পানি: সেই প্রাচীন কাল থেকে একটা কথা প্রচলিত আছে সমাজে, ফল খাওয়ার পর পানি খাওয়া ঠিক নয়। আমের ক্ষেত্রেও সেটি শতভাগ সত্যি। আম খাওয়ার পর পানি খেলে অ্যাসিডিটির সমস্যা দেখা দিতে পারে, হতে পারে পেট ব্যথাও। তাই আম খাওয়ার অন্তত আধঘণ্টা পর পানি পান করা উচিত।

বিশেষজ্ঞদের মতে, এ ফলের মধ্যে প্রচুর হাইড্রেটিং শক্তি রয়েছে যা তৃষ্ণা মেটানোর জন্য যথেষ্ট। যদি ফল খাওয়ার পরেও কেউ যদি তৃষ্ণার্ত বোধ করেন তবে কমপক্ষে ৩০ মিনিট পর পানি পান করা উচিত। বেশির ভাগ চিকিৎসক এবং ডায়েটিশিয়ানরা ফল ও পানি পানের মধ্যে কমপক্ষে ৪০-৫০ মিনিট ব্যবধানের পরামর্শ দেন।

দই : আমের সঙ্গে ভুলেও দই মিশিয়ে খাওয়া ঠিক নয় কারণ দই আর আম একসঙ্গে শরীরে বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে। এতে চামড়ায় অ্যালার্জি হতে পারে। এ ছাড়া হজমে সমস্যা, এমনকি পাকস্থলীতে বিষক্রিয়াও দেখা দিতে পারে।

করলা : আম খাওয়ার পর কখনই করলা খাওয়া ঠিক নয়। এতে বমিভাব হতে পারে। অনেকের বমিও হতে পারে।

ঝাল ও মসলাযুক্ত খাবার : আম খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ঝাল কিংবা মসলাযুক্ত খাবার খেলে হজমে সসম্যা দেখে দিতে পারে। হতে পারে অ্যালার্জির সমস্যাও।

কোমল পানীয়: আম খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে কোমল পানীয় খেলে শরীরে ক্ষতিকর প্রভাব পড়তে পারে। আম আর কোমল পানীয়তে প্রচুর পরিমাণে চিনি থাকায় রক্তে ব্লাড সুগারের পরিমাণ বাড়ার আশঙ্কা বেড়ে যায়। এর ফলে ডায়াবেটিস রোগীদের বিপদ হতে পারে।

Sharing is caring!