সদর প্রতিনিধি->>

শিশু-কিশোরদের নামাজে প্রতি আকৃষ্ট করতে পুরস্কারের ঘোষণা দিয়েছিলেন ফেনী জেলার ওয়াজিদ ভূঁইয়া জামে মসজিদের ইমাম। সেই ঘোষণায় আকৃষ্ট হয়ে টানা ৪০ দিন জামাতে নামাজ পড়ে পুরস্কার জিতে নিয়েছে সদর উপজেলার ফাজিলপুরের ২৩ কিশোর।

রোববার ফেনী সদর উপজেলার ইউনিয়নের ওয়াজিদ ভূঁঞা জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হলো এমনই এক ভিন্ন আয়োজন।

জানা যায়, কয়েকদিন আগে স্থানীয় ওয়াজিদ ভূঁঞা জামে মসজিদে ঘোষণা দিয়েছিলেন যে, ১৫ বছরের কম বয়সের কিশোররা যদি একটানা ৪০ দিন ৫ ওয়াক্ত নামাজ জামাতের সঙ্গে আদায় করে তাহলে তাদেরকে একটি করে বাইসাইকেল পুরস্কার দেয়া হবে। সে ঘোষণায় উৎসাহিত হয়ে এলাকার অনেক কিশোরই নামাজ আদায় শুরু করে।

টানা ৪০ দিন নিয়মিত জামাতে নামাজ পড়েছেন এমন ১৫ জনের হাতে রোববার পবিত্র কোরআন, জায়নামাজ এবং বাইসাইকেল পুরস্কার তুলে দেন ফাজিলপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মুজিবুল হক রিপন।

এ সময় ফাজিলপুর ওয়ালিয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মাঈন উদ্দিন খন্দকার, ফাজিলপুর বাজার জামে মসজিদের খতিব মাওলানা নাজমুল হক স্বপন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আকবর হোসেন মানিক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আমিনুর রহমান মাসুদ, স্থানীয় ইউপি সদস্য আলাউদ্দিন গঠনসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

শিশু-কিশোরদেরকে নামাজের প্রতি আকৃষ্ট করে মসজিদমুখী করার লক্ষ্যে আয়োজিত এমন উদ্যোগ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে। ইউপি চেয়ারম্যান মো. মুজিবুল হক রিপনের এমন ব্যতিক্রমী উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

উপজেলা চেয়ারম্যান রিপন বলেন, নামাজের জন্য উদ্বুদ্ধকরণের মাধ্যমে সমাজ থেকে মাদক, অন্যায়, অবিচার দুর হবে। সমাজ সুন্দর-সুশৃঙ্খল ও বাসযোগ্য হিসেবে গড়ে উঠবে বলে তিনি মনে করেন।

তিনি আরও বলেন, মহান আল্লাহ’র সন্তুষ্টি অর্জন করতে সবাইকে নেক আমল করে ইহকাল এবং পরকালে শান্তি আদায় করতে হবে।

মসজিদের ইমাম বলেন, প্রতিযোগিতা চলাকালীন সময়ে তাদের শুধু নামাজই পড়ানো হয়নি। বরং সঠিকভাবে নামাজ শিক্ষা ও নামাজ সম্পর্কে জরুরি মাসয়ালাও শেখানো হয়। সেই সঙ্গে তালিম-তরবিয়ত এবং নামাজের প্রতি মানুষকে আহ্বানের পাশাপাশি দ্বীন ইসলাম সম্পর্কে শিক্ষা দেওয়া হয়েছে।

Sharing is caring!