ফুলগাজী প্রতিনিধি->>

ফুলগাজীতে গ্রাহকদের ইট দেয়ার কথা বলে দেড় কোটি টাকা অগ্রীম নিয়ে ইটভাটা মালিক লাপাত্তা হয়ে গেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। উপজেলার বৈরাগপুরের নিউ পরফুল ব্রিকসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহমুদুল হাছান শুধু গ্রাহকদেরই নয়, অর্ধশতাধিক শ্রমিকের মজুরিও বকেয়া রেখে নিরুদ্দেশ হয়েছেন।

ক্ষতিগ্রস্তরা জানান, ইট কেনার জন্য ৬১ জন গ্রাহকের কাছ থেকে দেড় কোটি টাকা নিয়ে গত ২৩ মার্চ রাতের অন্ধকারে আত্নগোপনে চলে যায় ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহমুদুল হাছান। মালিকের ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বরে ফোন করলে সাড়া পাচ্ছেন না ক্ষতিগ্রস্তরা। ইট পাওয়ার আশায় প্রতিদিন ইট ভাটার সামনে এসে ভিড় করেন ক্ষতিগ্রস্তরা।

ফুলগাজীর গোসাইপুর গ্রামের শামীম মজুমদার বলেন, আমি ৩ লাখ ইটের জন্য বিভিন্ন কিস্তিতে ৭ লাখ টাকা দিয়েছি। এর মধ্যে কিছু ইট নিয়েছি। এখনও বেশির ভাগ ইট বাকি। এর মধ্যে মালিক পালিয়েছেন। ইট অথবা টাকা কীভাবে উদ্ধার করব জানি না।

পার্শ্ববর্তী উপজেলা পরশুরাম’র বসন্তপুর গ্রামের দেলোয়ার হোসেন বলেন, আমি গত বছরের আগস্ট মাসে ২০ হাজার ইটের জন্য অগ্রিম এক লাখ দিয়েছি। আমাকে ইট বুঝিয়ে না দিয়ে মাহমুদুল হাছান হাওয়া হয়ে গেছেন।

মাটি কাটার শ্রমিকের সর্দার ছাদেক মাঝি বলেন, আমরা সবাই নিম্ন আয়ের শ্রমিক। কেউ মাটি কাটে, কেউ মাটি টানে। অর্ধশতাধিক দিনমজুরের টাকা বকেয়া। আমাদের মজুরি না দিয়ে পালিয়েছেন মালিক। আমরা কীভাবে টাকা উদ্ধার করব তার কোনো কূলকিনারা পাচ্ছি না।

লালমনিরহাট জেলার মাটি কাটার শ্রমিক মো. আপেল, শিমুল ইসলাম, মো. আশিক, মিঠু রায়, মো. ফারুক ও সুমন ইসলাম বকেয়া টাকা পাওয়ার আশায় এখনও ইটভাটায় অপেক্ষা করছেন। তাদের প্রত্যেকে ২০-২৫ হাজার টাকা করে পাওনা।

তারা জানান, ঈদে একসঙ্গে টাকা পাওয়ার আশায় তারা এতদিন কাজ করেছেন।

ব্রিকসের ম্যানেজার সপ্তম সাহা বলেন, প্রায় দেড় কোটি টাকা নিয়ে মালিক (এমডি) হাছান মাহমুদ পালিয়ে গেছে। এখন সব মানুষ আমাকে ধরছে। আমি কী করব? আমিও তো এখানে টাকার জন্য চাকরি করছি। আমারও ৪ মাসের বেতন বাকি। এমডির নম্বরে ফোন করলে তার স্ত্রী ফোন ধরেন। বলেন, তার (এমডি) কোনো খোঁজ জানেন না।

ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল আলিম মজুমদার বলেন, আমিও ইটের জন্য বেশ কিছু টাকা দিয়েছি। লোকটাকে দেখে প্রতারক বলে মনে হতো না। তিনি এতগুলো মানুষের টাকা নিয়ে পালিয়েছেন। মানুষ এখন আমার অফিসে এসে ধরণা দিচ্ছে। আমি ক্ষতিগ্রস্ত গ্রাহকদের আদালতে মামলা করার পরামর্শ দিয়েছি।

ফুলগাজী থানার ওসি কুতুব উদ্দিন বলেন, অগ্রিম টাকা নিয়ে এমডির পালিয়ে যাওয়ার ঘটনার মৌখিকভাবে অভিযোগ পেয়েছি। কিন্তু লিখিতভাবে কেউ অভিযোগ দেননি। তবে শুনেছি অনেকেই আদালতে মামলা করেছেন। কেউ থানায় লিখিত অভিযোগ দিলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Sharing is caring!