শহর প্রতিনিধি->>

ফেনীতে আইসিটি আইনে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের ৪ নেতার নামে পুলিশের মামলা দায়েরের প্রতিবাদ জানিয়ে ষড়যন্ত্রমুলক মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে বিএনপি। সোমবার দুপুরে শহরের ইসলামপুর রোডের বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জেলা বিএনপির আহ্বায়ক শেখ ফরিদ বাহার।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির নেতারা দাবি করেন, মামলার প্রধান আসামী গ্রেপ্তারকৃত এমরানুল হক ইমরান ছাত্রদলেল কোন কমিটির পদপদবিধারী কেউ না। সে দলের সমর্থকও না। পুলিশ তাকে ছাত্রদলের কর্মী বানিয়ে আমাদের ৪ নেতার বিরুদ্ধে মিথ্যা, হয়রানী ও ষড়যন্ত্রমুলক মামলা দায়ের করেছে। ফেসবুকে ইমরানের দেওয়া পোষ্টটি জেলা বিএনপি যুগ্ম-আহ্বায়ক গাজী হাবিবুল্লাহ মানিক শেয়ার বা কমেন্ট কোনটি করেননি বলেও নেতারা সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেন। এজন্য ষড়যন্ত্রমুলক মামলাটি প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে বিএনপি।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন সদস্য সচিব আলাল উদ্দিন আলাল। এসময় জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক এম এ খালেক, এয়াকুব নবী, আলাউদ্দিন গঠন, আনোয়ার হোসেন পটোয়ারী, জেলা বিএনপির সদস্য জয়নাল আবদীন বাবলু, অ্যাড.পার্থ পাল চৌধুরী, বেলায়েত হোসেন বাচ্চু চেয়ারম্যান, সাইফুর রহমান রতন, পৌর বিএনপির সদস্য সচিব মেজবাহ উদ্দিন, পৌর যুবদলের আহ্বায়ক জাহিদ হোসেন বাবলুসহ বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদলের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

গত বৃহস্পতিবার জেলা গোয়েন্দা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. আলমগীর হোসেন বাদী হয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫(৩)/২৮(৩)/২৯/৩১(৩)/(৩৫) ধারায় ফেনী মডেল থানায় একটি মামলা (মামলা নং ৪৯) দায়ের করেন। মামলায় ফেনী জেলা বিএনপির যুগ্ম আহবায়ক গাজী হাবিবুল্লাহ মানিক, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন দোলন, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি সালাউদ্দিন মামুন, যুগ্ম সম্পাদক কাজী নজরুল ইসলাম দুলাল। ওই মামলায় প্রধান আসামী করা হয় এমরানুল হক ইমরানকে (২৯)। যাকে পুলিশ দাবি করেছে ছাত্রদলের সক্রিয় কর্মী। গ্রেপ্তার এমরানুল হক ইমরান ফেনী শহরের দক্ষিণ চাঁড়িপুর মহিপাল সরকারী কলেজ রোড এলাকার আবদুল করিমের ছেলে।

মামলার বাদি জেলা গোয়েন্দা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. আলমগীর হোসেন জানান, সম্প্রতি ছাত্রদল নেতা ইমরানুল হকের ফেসবুক আইডি থেকে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা সজিব ওয়াজেদ জয় ও পুলিশ মহাপরিদর্শক ড. বেনজির আহমদকে নিয়ে কটুক্তি এবং সাম্প্রতিক নানা বিষয়ে উস্কানিমূলক পোষ্ট করা হয়। ওইসব পোষ্টে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতারা শেয়ার, লাইক ও কমেন্ট করে। এ ঘটনায় ২০১৮ সালের এমরানুল হক ইমরানকে প্রধান আসামী ও অন্যদের সহযোগী হিসেবে মামলায় অভিযুক্ত করা হয়েছে।

Sharing is caring!