নিজস্ব প্রতিনিধি->>

ছাগলনাইয়ায় করোনা আক্রান্ত হয়ে দেলোয়ারা বেগম (৫৮) নামে এক নারী চট্টগ্রাম সিএমএইচ এ চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়েছে। গত শনিবার রাতে মারা যাওয়া ওই নারীর নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে সোমবার তাঁর করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়। নিহত দেলোয়ারা বেগম ছাগলনাইয়া উপজেলার শুভপুর ইউনিয়নের চম্পকনগর গ্রামের মো. শাহ আলমের স্ত্রী।

মৃতের স্বজনদের সূত্র জানায়, চম্পকনগর গ্রামের বাড়ীতে কয়েকদিন থেকে জ্বর, শ্বাসকষ্টসহ অসুস্থ হলে দেলোয়ারা বেগমকে গত শুক্রবার ছাগলনাইয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে পরদিন শনিবার তাঁর নমুনা সংগ্রহ করা হয় এবং বিকেলে ঢাকা সিএমএইচ এ পাঠিয়ে দেওয়া হয়। পরে তার অবস্থার আরো অবনতি হলে শনিবার দুপুরে চট্টগ্রাম সিএমএইচ এ ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই দিন রাতেই তিনি মারা যান। রোববার লাশ বাড়ীতে নিয়ে দাফনও করা হয়।

সিভিল সার্জন কার্যালয় সুত্র জানায়, ফেনীতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে জেলার কর্মরত সিভিল সার্জন ডা. সাজ্জাদ হোসেনসহ ৪৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে ৪১ জন পুরুষ ও ৮ জন নারী রয়েছে। মৃতদের মধ্যে সদর উপজেলায় ১৯ জন, সোনাগাজীতে ১১ জন, দাগনভূঞা উপজেলায় ৮ জন, ছাগলনাইয়ায় ৭ জন, পরশুরামে ৩ জন ও ফুলগাজীতে একজন রয়েছে।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্যমতে, গত বছরের ১৬ এপ্রিল ফেনীতে প্রথম এক যুবকের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রামন শনাক্ত হয়। ফেনীর বক্ষব্যাধি হাসপাতালের জেনেক্সপার্ট ল্যাব, নোয়াখালী আবদুল মালেক উকিল মেডিকেল কলেজ পিসিআর ল্যাব, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেজ (বিআইটিআইডি) এবং চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও এনিমেল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে পরীক্ষার ১৭ হাজার ৪৯৩ টি নমুনা প্রেরণ করা হয়েছে এদের মধ্যে ১৭ হাজার ১১৪টি নমুনার ফলাফল পাওয়া যায়। করোনা শনাক্তের এক বছরের মাথায় এসে ফেনীতে আক্রান্তের সংখ্যা ৩ হাজার ছাড়িয়েছে। সোমবার নতুন করে আক্রান্ত ৩৪ জনসহ জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৩ হাজার ২৭ জনে দাঁড়িয়েছে। জেলায় নমুনা পরীক্ষার অনুপাতে শনাক্তের হার ১৭.৬৮ শতাংশ। সুস্থতার হার প্রায় ৭৪.৫৬ শতাংশ।

Sharing is caring!