বিশেষ প্রতিবেদক->>

ফেনী পৌরসভার আসন্ন নির্বাচনে শহরের ‘ভিআইপি’ ওয়ার্ড হিসেবে পরিচিত ১০ নং ওয়ার্ডের কাউন্সির পদে ‘প্রার্থী হচ্ছেন’ জেলার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক মনির উদ্দিন খান পাঠান সেলিমের ছেলে খালেদ খান। নির্বাচনকে সামনে রেখে বৃহস্পতিবার সকালে ব্যাপক শোডাউনের মাধ্যমে সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে খালেদ খান আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামীলীগে যোগদান করবেন বলে জনশ্রুতি রয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে শহরের পাঠানবাড়িস্থ সেলিম খানের বাসভবন প্রাঙ্গণে সামাজিক পঞ্চায়েত কমিটি এক মতবিনিময় সভার আয়োজন করে। পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি কেবিএম জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন মনির উদ্দিন খান পাঠান সেলিম।

সংগঠক আরাফাত খানের সঞ্চালনায় আলোচনায় অংশ নেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মোস্তফা হোসেন, আওয়ামীলীগ নেতা আবদুল গোফরান বাচ্চু ও আশ্রাফ উদ্দিন ভূঁঞা, সাবেক কমিশনার আবুল কাশেম, ব্যবসায়ী জিন্নাহ খান, মো: ফরিদ উদ্দিন ও নিজাম উদ্দিন ভূঁঞা, পৌর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি গোলাম ফারুক বাচ্চু, ছাত্রলীগ নেতা তরিকুল ইসলাম প্রমুখ।

সভা শেষে মুনাজাত পরিচালনা করেন ফেনী আলিয়া কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মাহমুদুল হাসান। সভায় এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

পঞ্চায়েত কমিটির সভায় বক্তারা খালেদ খানের দাদা করিম পাঠানের স্মৃতিচারণ করে বলেন, খাজা আহম্মদের অন্যতম পৃষ্ঠপোষক ছিলেন করিম পাঠান। ফেনী জেলা আওয়ামী লীগে তার অনেক অবদান ছিল।

মনির উদ্দিন সেলিম পাঠান বলেন, ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন হাজারীর আহবানে সাড়া দিয়ে আমার ছেলে ব্যবসায়ী খালেদ খান আওয়ামী লীগে যোগদান করতে যাচ্ছেন। তার যোগদানের মধ্য দিয়ে পৌরসভার ১০নং ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগ আরো শক্তিশালী হবে।

খালেদ খান জানান, রাজধানীতে শিক্ষাজীবন শেষে সম্প্রতি ফেনী এসে পারিবারিক ঐতিহ্য অনুযায়ী ব্যবসা-বাণিজ্য ও সমাজ সেবায় তিনি সম্পৃক্ত রয়েছেন। দীর্ঘদিন ফেনীর বাহিরে থাকায় অনেকের সঙ্গে তার চেনা পরিচয় নেই। ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারীর নেতৃত্ব ও আদর্শে মুগ্ধ হয়ে এবং বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ধারায় সম্পৃক্ত হতে তিনি আওয়ামী লীগে যোগদান করছেন। ভবিষ্যতে জনগণের সেবায় তিনি নিজেকে উৎসর্গ করতে চান।

Sharing is caring!