শিল্পকলা একাডেমীর প্রজ্ঞাপন (৫০০ ও ১০,০০০ টাকা) প্রসংগে একজন সাংস্কৃতিক কর্মী হিসেবে আমি ক্ষুব্দ ও ব্যথিত।

সম্প্রতি শিল্পকলা একাডেমী ফেনী’র একটি বিজ্ঞপ্তি চোখে পড়েছে। যা একজন নাট্যকর্মী হিসেবে আমি ব্যথিত ও শঙ্কিত হয়েছি। কারণ আমরা সাংস্কৃতিক কর্মীরা নিজের খেয়ে বনের মোষ তাড়াই। সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের মাধ্যমে আমরা জীবন যৌবন বিসর্জন বা উজার করে দিয়ে যাচ্ছি সামাজ তথা এ রাষ্টের জন্য। শেষ পর্যন্ত সংগঠনের জন্য আমাদের যৌবনের কাজটুকু মানে ঠিক সময় বিয়ে করতে পারিনি। আমাদের কাছে, মেয়ের বাপ-মা’রা তাদের মেয়েকে বিয়েও দিতে চায় না।

ছেলে কি করে?
ছেলে নাটক করে, গান করে, নাচ করে, আবৃত্তি করে, ছবি আঁকে বা লেখালিখি করে।

তখন মেয়ের বাবা-মা বলে, এটি কি কোন কাজ হল না কি? না সেখানে বিয়ের সম্পর্ক হবে না।
আমরা এ সমাজ গড়তে গিয়ে হয়ে যা, এ সমাজেরই ঘৃণিত মানুষ।
আমাদের জীবন যৌবনটা বিসর্জন দিয়ে মেধা ও মননের সম্বনয়ে এ সমাজ তথা রাষ্ট্র গড়ার কাজ করেছিলাম।

কেন এ সমাজের বাবা-মা আমাদের কাছে তাদের মেয়ে বিয়ে দেয়নি, জানেন? কারণ আমাদের কাছে কাড়িকাড়ি টাকা পয়সা নেই। আমদের একটা নাটক করতে যদি বাজেট হত ৫০০০ টাকা, খরচের দেখা যেত ৮০০-৯০০ টাকার ঘাটতি। তখন এ ঘাটতির বোঝা আমাদের ঘাড়ে পরত। গান, নাচ, আবৃত্তি সব ক্ষেত্রে তাই।

সরকারের পক্ষ থেকে প্রতি নাটকে কস্টিউম খরচ বাবদ দেয়া হত ৫০০ টাকার পরবর্তে ১০০০ টাকা। সংগঠন করতে করতে বয়স ও শেষ, তখন বয়স ৪৫/৫০ বছরে গিয়ে কোন রকম দ্বায়সারা ভাবে গ্রামের সেই অসহায় কালা চানটি জোটে আমাদের ভাগ্য। সে অসহায় কালা চানকে নিয়ে জীবন আর চলে না, নুন আনতে পান্তা ফুরায়। আরো শুনি বৌ এর মুখে এই বয়সে বিয়ে না করলেই ভাল হত, এই নাই সেই নাই ইত্যাদি।

এত গুলি কথা বললাম এ কারণে যে, শিল্পকলায় বসে যারা এ কাজ করল তারা কারা ? তারা নিশ্চয় আ ম লা। তারা আমাদের ব্যপারে বুঝবে কি করে? পড়া লেখা শেষে চাকুরীর মোটা বেতন, সুন্দর রমনী, সরকারী গাড়ী- বাড়ী, চাকুরী শেষে লম্বা পেনশনে তাদের জীবন।

আমরা এ সমাজে বেঁচে আছি নর্দমার কীট হয়ে। আমাদের নুন আনতে পান্তা ফুরায়। আমরা নাকি, যাদের বয়স ৩৫ উর্ধ্ব তাদের নাকি ৫০০ টাকা ও যারা আজীবন সদস্য হতে ১০,০০০ টাকা দিতে হবে, তার কারণ বুঝলাম না। আমরা তো জীবন যৌবন সব দিয়ে দিয়েছি, এ রাষ্টকে। আমাদের শিল্পকলার মহাপরিচালক মহোদয়কে বলব, আপনি ভাবুন তো আজ থেকে ৩০/৪০ বছর আগে আপনার কথাটা। ভেবে রায় দিন।

আ ম লার কথায় নয়!
আমাদের বুকে রক্ত ক্ষরণ হচ্ছে।
সদস্য হতে ২০ টাকা-১০০ টাকা হতে পারে ৫০০ টাকা কেন?
এটি কোন ব্যবসা প্রতিষ্ঠন নাকি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, কেন প্রতিষ্ঠাতা মেম্বার
আমার প্রশ্ন??
তাহলে দেশ বরেণ্য ব্যক্তিদ্বয়দের (প্রয়াত বাদ যাবে) অনুদান কে দেবে?
এ প্রশ্ন গুলো থাকলো আপনাদের কাছে?

লেখক- কাজি ইকবাল আহমেদ পরান, সমন্বয়কারী (সাবেক), ফেনী থিয়েটার

(বি.দ্র. প্রকাশিত মতামতটি একান্তই পাঠকের নিজস্ব মতামত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।)

Sharing is caring!