সোনাগাজী প্রতিনিধি->>

সোনাগাজীতে স্কুল ছাত্রী শালীকে অপহরণ করে ‘ধর্ষণ’ করার মামলায় দুলাভাই আবদুর রহিমকে (৩৫) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাতে মঙ্গলকান্দি ইউনিয়নের ডাকবাংলা এলাকার একটি ভাড়া বাসা থেকে আবদুর রহিমকে গ্রেপ্তার করা হয়। অপহৃত স্কুল ছাত্রীকে উদ্ধার করে পুলিশ। গ্রেপ্তার রহিম উপজেলার আমিরাবাদ ইউনিয়নের আহম্মদপুর গ্রামের জহির উদ্দিন মিঝি বাড়ির জসিম উদ্দিনের ছেলে।

পুলিশ, ভুক্তভোগী পরিবার ও এলাকাবাসী জানায়, বিগত ৫-৬ বছর আগে একই ইউনিয়নের সফরপুর গ্রামের এক নারীকে বিয়ে করেন মুদি দোকানী আবদুর রহিম। তার স্ত্রীর ১৬ বছর বয়সী বোন (শালী) স্থান্যীয় একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রীর উপর তার কুনজর পড়ে। বিয়ের প্রস্তাবে তাকে সে প্রতিনিয়ত উত্ত্যক্ত করত। বিষয়টি ওই ছাত্রী তার মা ও বোনকে জানালে এতে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে দুলাভাই। গত ১৭ নভেম্বর সকাল ৭টার দিকে প্রাইভেট পড়তে যাওয়ার সময় সফরপুর মোল্লা বাড়ির সামনে থেকে ওই ছাত্রীকে পূর্ব থেকে ওঁৎপেতে থাকা দুলাভাই আবদুর রহিম ও তার ৩-৪জন সহযোগি জোরপূর্বক সিএনজি অটোরিক্সা যোগে অপহরণ করে অন্যত্র নিয়ে যায়। বিষয়টি জানতে পেরে ছাত্রীর মা বাদি হয়ে আবদুর রহিমের নাম উল্লেখ করে ও অজ্ঞাত ৩-৪ জনকে আসামি করে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন।

সোনাগাজী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাজেদুল ইসলাম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আবদুর রহিমকে মঙ্গলকান্দি ইউনিয়নের ডাকবাংলা এলাকার একটি ভাড়া বাসা থেকে আবদুর রহিমকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। অপহরণের সেই স্কুল ছাত্রীকে ৭ দিন পর উদ্ধার করে পুলিশ। বুধবার সকালে ফেনী জেনারেল হাসপাতালে ওই ছাত্রীর শারীরিক পরীক্ষা শেষে বিকালে ফেনী সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শরাফ উদ্দিনের আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দি প্রদান করে। একই দিন দুপুরে আদালতের মাধ্যমে দুলাভাই আবদুর রহিমকে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ।

Sharing is caring!