ছাগলনাইয়া প্রতিনিধি->>

এক যুগেরও বেশি সময় ধরে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে ফেনীর ছাগলনাইয়া উপজেলার মহামায়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের কার্যক্রম। এখানে চিকিৎসাসেবার জন্য আসা রোগীরা সব সময় আতঙ্কে থাকেন। ভয়ে অনেক রোগী অন্যত্র চলে যান।

স্থানীয়রা জানান, ৪৩ বছরের পুরনো ভবনটিতে নিয়মিত পলেস্তারা খসে পড়ছে। পানীয়জলের ব্যবস্থা নেই। দরজা-জানালা ভাঙ্গা। বৃষ্টি আসার সঙ্গে সঙ্গে ছাদ থেকে পানি পড়ে সবকিছু ভিজে যায়। অপারেশন থিয়েটার (ওটি) পুরোপুরি অচল। স্বাভাবিক প্রসব সেবা বন্ধ। মেডিকেল অফিসার, ফার্মাসিস্ট, দুজন পরিবার কল্যাণ সহকারী ও একজন আয়াসহ পাঁচটি পদ দীর্ঘদিন ধরে খালি।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রটি ১৯৭৯ সালে স্থাপিত হয়। ভবনটি মেরামতের জন্য বেশ কয়েকবার বরাদ্দ দেওয়া হলেও উন্নয়নের তেমন ছোঁয়া লাগেনি ভবনটিতে। ভবনে পানির ব্যবস্থা নেই, টয়লেটসহ সবকক্ষ ব্যবহারের অনুপযোগী।

এখানে কর্মরত পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা আয়েশা খানম বলেন, এমন বৈরী পরিবেশে কাজ করতে আমাদেরও ভয় হয়। কখন আবার মাথার ওপর পলেস্তারা খসে পড়ে। জরাজীর্ণ অবস্থার কারণে স্বাভাবিক প্রসব সেবা বন্ধ রয়েছে। কিন্তু প্রসব পূর্ব এবং প্রসব পরবর্তী সেবা চালু আছে। জরুরী নথিপত্র ও ওষুধ সংরক্ষণের জন্য আলমিরা নেই।

এ বিষয়ে মহামায়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহজাহান মিনু বলেন, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রটির বাইরের পরিবেশ কিছুটা স্বাভাবিক হলেও ভিতরে ঢুকলে মনে হয় যেন ভূতের বাড়ি।

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর ফেনীর উপ-পরিচালক আবু সালেহ মোহাম্মদ ফোরকান উদ্দিন জানান, মহামায়া ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রটি পরিত্যক্ত। তাই সেবাদানে সমস্যা হচ্ছে। খুব শীঘ্রই ভবনটি ভেঙ্গে নতুন ভবন নির্মাণ করা হবে।