শহর প্রতিনিধি->>

ফেনীতে জ্বালানি তেলের মুল্যবৃদ্ধি, দ্রব্যমুল্যের ঊর্ধ্বগতি, মাত্রাতিরিক্ত লোডশেডিং এবং ওষুধসহ নিত্যপন্যের দাম বাড়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে বিভিন্ন সংগঠন।

শনিবার দুপুরে শহরের ট্রাংক রোডের শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে কৃষি উন্নয়ন পরিষদের ব্যানারে এক মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করে সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

তেল, সার এবং ওষুধসহ দ্রব্যমূল্য বাড়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভে সভাপতিত্ব করেন অ্যাডভোকেট খুরশিদ আলম। বক্তব্য রাখেন অ্যাডভোকেট সাচ্চু ইসলাম, অ্যাডভোকেট সমীর করসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ।

মানববন্ধনে তারা বলেন, হঠাৎ মধ্যরাতে জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়েছে সরকার। প্রতিনিয়ত মানুষের জীবিকার খরচ বেড়েছে কিন্তু সে অনুযায়ী আয় বাড়েনি। প্রতিদিনই নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে। অল্প সময়ের মধ্যে এসব দাম দ্রুত কমানোর দাবি জানান বক্তারা।

এদিকে বিকেলে শহরের ট্রাংক রোডের ফেনী প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে ফেনী জেলা মহিলা দল।

জেলা মহিলা দলের সভাপতি জুলেখা আক্তার ডেইজির সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন দলের সাধারণ সম্পাদক জয়নব বানু, সাংগঠনিক সম্পাদক নুর তাঞ্জিলা প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, বিদ্যুতের দাবিতে ভোলায় বিক্ষোভে পুলিশের গুলিতে ছাত্রদলের সভাপতিসহ দুইজন নিহত হয়েছে। বিদ্যুতের লোডশেডিং এর মধ্যে এবার জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়ে জনজীবনকে ধ্বংস করে দিচ্ছে সরকার। অবিলম্বে সরকারকে পদত্যাগ করে নির্বাচন দিতে হবে। না হলে এ সরকার পালানোর পথ পাবে না।

বিক্ষোভ সমাবেশে জেলা মহিলা দলের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া বিকেলে শহরে বিক্ষোভ মিছিল করেছে জেলা ছাত্রদল, বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল বাসদ ফেনী জেলা শাখা।

প্রসঙ্গত, শুক্রবার (৫ আগস্ট) রাত থেকেই কার্যকর হয়েছে সরকার ঘোষিত ডিজেল, পেট্রল, কেরোসিন, ও অকটেনের নতুন দাম। দাম বেড়েছে প্রতি লিটার ডিজেলে ৩৪, কেরোসিনে ৩৪, অকটেনে ৪৬, পেট্রলে ৪৪ টাকা। দাম বাড়ার পর প্রতি লিটার ডিজেল ১১৪ টাকা, কেরোসিন ১১৪ টাকা, অকটেন ১৩৫ টাকা ও প্রতি লিটার পেট্রল ১৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আগে ভোক্তা পর্যায়ে খুচরা তেলের দাম ছিল প্রতি লিটার ডিজেল ৮০ টাকা, কেরোসিন ৮০ টাকা, অকটেন ৮৯ টাকা ও পেট্রল ৮৬ টাকা।