ছাগলনাইয়া প্রতিনিধি->>

ছাগলনাইয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির এক সভায় পাওনা টাকা চাওয়ায় আওয়ামী লীগ নেতা মাস্টার আবুল কালাম মেম্বারকে থাপ্পড় মারলেন মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম। মঙ্গলবার দুপুরে ছাগলনাইয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান উদ্‌যাপন উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভায় এই ঘটনা ঘটে।

ছাগলনাইয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক মাস্টার আবুল কালাম মেম্বার জানান, তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলামের নিকট বিশ হাজার টাকা পাবেন। আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান উদ্‌যাপন উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভার শুরুতে দেখা হলে পাওনা টাকা চাওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম দলীয় নেতা-কর্মীদের সামনে তাঁকে থাপ্পড় মারেন। পরে জুতা হাতে নিয়ে পুনরায় মারতে আসেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে অভিযুক্ত মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘কালাম আমার সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করেছে। তাই তাঁকে আওয়ামী লীগের সভায় দুটি থাপ্পড় ও জুতা পেটা করেছি।’

এ ঘটনায় সভায় উপস্থিত সকল সদস্যরা ক্ষিপ্ত হয়ে মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলামকে দলীয় সদস্য পদ থেকে বহিষ্কার করার জন্য দাবি জানান।

ছাগলনাইয়া পৌরসভার মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি মোহাম্মদ মোস্তফা বলেন, সভায় সর্বসম্মতিক্রমে মুক্তিযোদ্ধা রফিককে দল থেকে বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে ছাগলনাইয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মেজবাউল হায়দার চৌধুরী সোহেল ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, অভিযুক্ত মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলামকে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অপরাধে দল থেকে বহিষ্কার করা হবে।

উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি নিজাম উদ্দিন মজুমদার বলেন, এমন আচরণ মেনে নেওয়া যায় না। দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।