সদর প্রতিনিধি->>

ফেনীতে বাসের চাপায় সিএনজিচালিত অটোরিকশাচালকের মৃত্যুর পর এবার ওই অটোরিকশার আহত যাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। আজ বুধবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে ফেনী-সোনাগাজী আঞ্চলিক সড়কের গোবিন্দপুর চালতাতলায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় ওই যাত্রীকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

নিহত ওই যাত্রীর নাম উম্মে হাবিবা শারমিন (১৩)। সে ফেনী সদর উপজেলার গোবিন্দুর গ্রামের মিজানুর রহমানের মেয়ে ও গোবিন্দপুর মহিলা মাদ্রাসার ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী। এর আগে নিয়ন্ত্রণ হারানো বাসের চাপায় ঘটনাস্থলেই অটোরিকশার চালক মো. নুরুজ্জামান (৪২) মারা যান। তিনি সদর উপজেলার ধলিয়া ইউনিয়নের উত্তর ধলিয়া এলাকার আবুল কালামের ছেলে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকালে উম্মে হাবিবা ওই অটোরিকশায় চড়ে মাদ্রাসায় যাচ্ছিল। গোবিন্দপুর চালতাতলা এলাকায় পৌঁছানোর পর সোনাগাজীর কাজিরহাটগামী একটি বাসের সামনের চাকা ফেটে যায়। এতে চালক নিয়ন্ত্রণ হারালে বাসটি একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশাকে চাপা দেয়। এতে অটোরিকশাটি দুমড়েমুচড়ে চালক ও যাত্রী গুরুতর আহত হন।

দুর্ঘটনার পর তৎক্ষণাৎ পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আহত দুজনকে উদ্ধার করে ফেনী ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যান। সেখানে ভর্তির পরই চালক নুরুজ্জামান মারা যান। পরে হাবিবার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হচ্ছিল। তবে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে পথেই হাবিবার মৃত্যু হয়।

ফেনী সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নিজাম উদ্দিন বলেন, অটোরিকশাচালকের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ফেনী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। মাদ্রাসাছাত্রীর লাশও ফেনী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে নিয়ে আসতে বলা হয়েছে।