দাগনভূঞা প্রতিনিধি->>

দাগনভূঞায় জমিজমাসংক্রান্ত বিরোধকে কেন্দ্র করে সালিস বৈঠকে প্রতিপক্ষের হামলায় এক যুবক মারা যাওয়ার ঘটনায় করা মামলার তিন আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। রোববার আদালতের মাধ্যমে তাঁদের জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

গ্রেপ্তার তিনজন হলেন উপজেলার জায়লস্কর ইউনিয়নের পূর্ব হীরাপুর গ্রামের ওবায়দুল হক (৩৩), তাঁর স্ত্রী সাহানা আক্তার (১৭) এবং উত্তর খুশীপুর গ্রামের জহির আহম্মেদের স্ত্রী মারজান বেগম (৩৬)।

শনিবার জায়লস্কর ইউনিয়নের দক্ষিণ খুশীপুর গ্রামের মির্জাবাড়িতে সালিস বৈঠকে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত শাহজালাল ফারুক (৪০) পরে মারা যান। তিনি দক্ষিণ খুশীপুর গ্রামের আবদুল হাকিমের ছেলে।

দাগনভূঞা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাসান ইমাম বলেন, শাহজালাল ফারুকের বাবা আবদুল হাকিম বাদী হয়ে শনিবার রাতে ১১ জনের নাম উল্লেখ ও ৩-৪ জনকে অজ্ঞাতনামা হিসেবে উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা করেন। এরপর রাতেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে ওবায়দুল হক, মারজান বেগম ও সাহানা আক্তারকে গ্রেপ্তার করে। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে অন্য আসামিরা পালিয়ে যান।

পুলিশ ও স্থানীয় ব্যক্তিরা জানিয়েছেন, শনিবার সকালে দক্ষিণ খুশীপুর গ্রামের মির্জা বাড়িতে শাহজালাল ফারুকের চাচা ও চাচাতো ভাইদের সঙ্গে পারিবারিক জমিজমা নিয়ে সালিস বৈঠক বসে।

এ সময় একপক্ষের হামলায় শাহজালাল ফারুক, তাঁর বাবা আবদুল হাকিম ও ভাই আবদুল হালিম আহত হন। হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসক শাহজালাল ফারুককে মৃত ঘোষণা করেন।