ঢাকা অফিস->>

রতনপুর গ্রুপের অন্যতম প্রতিষ্ঠান আরএসআরএমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাকসুদুর রহমানকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। তাকে ধরতে বুধবার রাত ১১টা থেকে রাজধানীর গুলশানে অভিযান শুরু হয়। র‌্যাব বলছে, মাকসুদুর দেশের অন্যতম শীর্ষ ঋণখেলাপি ও ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি।

রাতে র‌্যাবের পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো ক্ষুদেবার্তায় এ তথ্য জানানো হয়।

জানা গেছে, ১৯৮৪ সালে প্রতিষ্ঠিত আরএসআরএম এক সময় ছিল চট্টগ্রামের ইস্পাত খাতের নামী কোম্পানি। ৪০ কোটি টাকার বিদ্যুৎ বিল বকেয়া পড়ায় বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) আরএসআরএম গ্রুপের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়। ফলে ২০২১ সালের শুরু থেকেই এ কারখানা বন্ধ রয়েছে।

আরএসআরএমের মূল প্রতিষ্ঠান রতনপুর গ্রুপের কাছে ১০ ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান সব মিলিয়ে পাবে দুই হাজার ২০০ কোটি টাকা। ঋণ হিসেবে নেওয়া এই বকেয়া আদায়ের জন্য এখন পর্যন্ত আরএসআরএমসহ তাদের অন্য প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে অন্তত ২০টি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে সোনালী ব্যাংকের এক মামলা এবং জনতা ব্যাংকের দুই মামলায় আরএসআরএমের মালিকদের বিরুদ্ধে রয়েছে গ্রেপ্তারি পরোয়ানাও।

আরএসআরএমের কাছে সোনালী ব্যাংকের পাওনা ২০১ কোটি টাকা। ওই টাকা আদায় করতে না পেরে চলতি বছরের জানুয়ারিতে চট্টগ্রামের বায়েজিদ এলাকায় আরএসআরএমের কারখানাসহ ১০০ শতক জমি নিলামে তোলার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ। জনতা ব্যাংকের ৩১৩ কোটি টাকা ঋণ শোধ না করায় চলতি বছরের ২৭ জানুয়ারি মাকসুদুরের দেশত্যাগেও নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়।

এসব মামলায় রতনপুর গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মাকসুদুর রহমান, চেয়ারম্যান শামসুন নাহার রহমান, ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দুই ছেলে— মিজানুর রহমান ও মারজানুর রহমান, পরিচালক ইউনুস ভুঁইয়া এবং মডার্ন স্টিল মিলস লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. আলাউদ্দিনকে আসামি করা হয়।

প্রসঙ্গত, আরএসআরএম গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মকসুদুর রহমান ফেনী সদর উপজেলার পাঁচগাচিয়া ইউনিয়নের রতনপুর গ্রামের বাসিন্দা ও রতনপুর হাজী ছৈয়দের রহমান স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয়ের গভর্নিং বডির সভাপতি।