চট্টগ্রাম অফিস->>

সীতাকুণ্ডের বিএম কন্টেইনার ডিপোতে ভয়াবহ আগুনের ঘটনায় নিখোঁজ ফেনীর ফুলগাজীর মুন্সিরহাট ইউনিয়নের দক্ষিন আনন্দপুর গ্রামের বাসিন্দা শাহাদাত মজুমদারের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। রোববার দুপুরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত শাহদাত মজুমদার ফুলগাজীর মুন্সিরহাট ইউনিয়নের দক্ষিন আনন্দপুর গ্রামের আমিন উল্যাহ মজুমদারের বড় ছেলে। তিন ভাইবোনের মাঝে শাহদাত মেঝ। তার আড়াই মাসের কন্যা সন্তান রয়েছে।

এর আগে উদ্ধারকারী ফায়ার সার্ভিস ফেনীর শাহাদাত মজুমদারের মরদেহ সহ রোববার রাত পর্যন্ত ৪৯ জনের মরদেহ উদ্ধার করেছে। ভয়াবহ আগুনে অন্তত ৪শতাধিক মানুষ আহত হয়েছে।

এদিকে সীতাকুণ্ডের বিএম কন্টেইনার ডিপোতে ভয়াবহ আগুনে নিহত শাহাদাত মজুমদারের বাড়িতে চলছে শোকের মাতম। ফুলগাজীর মুন্সিরহাট ইউনিয়নের উত্তর আনন্দপুর গ্রামের বাড়িতে শাহাদাতের স্বজনরা বারবার মুর্ছা যাচ্ছেন।

পরিবারের একমাত্র কর্মক্ষম ছেলের মৃত্যুতে বাকরুদ্ধ বাবা-মা। নিষ্পলক চোখে বাবার প্রতিক্ষায় আড়াই মাসের সন্তানটি। পথ চেয়ে বিলাপে কাঁতরাচ্ছে স্ত্রী আয়েশা ও স্বজনরা। এক পলক দেখতে সারি সারিতে বাড়ির পথে প্রতিবেশীরা। রোববার দুপুরে স্বজনরা চট্টগ্রাম মেডিকেলে যেয়ে তার মরদেহ চিহৃত করেন।

নিহতের স্বজনরা জানান, শাহাদাতের মরদেহ চট্টগ্রাম মেডিকেল থেকে বাড়িতে আনার পর লাশ দাফনের প্রক্রিয়া চলছে।

নিহতের মা শাহানা আক্তার বলেন, ফেনী সরকারি কলেজে স্নাতক পাশ করেই চাকুরিতে যোগ দেন বিএম কন্টেইনার ডিপোর শিফট ইনচার্জ হিসেবে। বৃহস্পতিবারে ছুটিতে বাড়িতে আসেন শনিবার সকালে তিনি কাজে যোগদান করেন। ডিউটি শেষ করে বাসায় যান। অগ্নিকান্ডের খবর পেয়ে ডিপোতে আসেন ও পরিবারের সাথে মোবাইলে কথা বলা অবস্থায় বিস্ফোরনের পর থেকেই যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়।