দাগনভূঞা প্রতিনিধি->>

দাগনভূঞায় পূর্ব চন্দ্রপুরে আট বছরের এক শিশু শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের চেষ্টা করেছে ১৫ বছরের একজন কিশোর। এঘটনায় শিশু শিক্ষার্থীর মা বাদী হয়ে শনিবার সন্ধ্যায় ওই কিশোরের বিরুদ্ধে দাগনভূঞা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। ঘটনার পর থেকে ওই কিশোর পলাতক রয়েছে। এর আগে শুক্রবার সন্ধ্যায় ধর্ষণ চেষ্টার এঘটনাটি ঘটেছে।

ওই শিশু শিক্ষার্থী স্থানীয় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণিতে লেখাপড়া করে। শনিবার সকালে ওই স্কুল ছাত্রীকে ফেনী ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালে ভতি করা হয়েছে।

পুলিশ ও পারিবারিক সুত্র জানায়, শুক্রবার সন্ধ্যায় প্রতিবেশী শিশু শিক্ষার্থীকে একা পেয়ে ওই কিশোর ধর্ষণের চেষ্টা করে। এ সময় ধস্তাধস্তিতে ওই শিশু শিক্ষার্থী আহত হয়। তার শোর চিৎকার ও কান্নাকাটির আওয়াজ শুনে প্রতিবেশী লোকজন এগিয়ে আসতে দেখে ওই বখাটে কিশোর দৌড়ে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা এগিয়ে গিয়ে ওই শিশু শিক্ষার্থীকে সেখান থেকে উদ্ধার করে বাড়ীতে পৌঁছে দেন। পরে ওই শিশু শিক্ষার্থী ঘটনাটি উপস্থিত সবাইকে জানায়।

ফেনী ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) মো. ইকবাল হোসেন ভূঞা জানান, ওই শিশু শিক্ষার্থীর চিকিৎসা চলছে। সবগুলি পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে দেওয়া হয়েছে।

দাগনভূঞা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাসান ইমাম বলেন, শনিবার সন্ধ্যায় ওই কিশোরের বিরুদ্ধে দাগনভূঞা থানায় শিশু শিক্ষার্থীর মা বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন। ঘটনার পর থেকে ওই কিশোর পলাতক রয়েছে।