পরশুরাম প্রতিনিধি->>

পরশুরামে র‌্যাব-পুলিশের মারামারির ঘটনায় তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ফেনী পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুনের নির্দেশনায় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ বদরুল আলম মোল্লাকে প্রধান করে গঠিত এ তদন্ত কমিটিতে সদস্য রয়েছেন সহকারী পুলিশ সুপার মো. মাশকুর রহমান, বিশেষ শাখার পুলিশ পরিদর্শক সাইফুদ্দিন ভূঞা।

বুধবার তদন্ত কমিটির সদস্যরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী ও দোকানীর সাক্ষ্য গ্রহণ করেছেন। এছাড়াও তারা এ ঘটনায় আহত পুলিশ সদস্যদের সাথেও কথা বলেছেন।

তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বদরুল আলম মোল্লা জানান, এবিষয়ে তদন্ত শেষ করে আগামী ১০ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে এসপি স্যার নির্দেশ নিয়েছেন। সেই আলোকে আমরা কাজ করছি। ঘটনার সময়ের প্রত্যক্ষদর্শী ও আহত পুলিশ সদস্যদের সাথে কথা বলছি।

এর আগে পরশুরামে গাড়ি তল্লাশিকে কেন্দ্র করে বাজারের ডাকবাংলা মোড়ে দুই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের (র‌্যাব ও পুলিশ) মারামারির ঘটনা ঘটেছে। মঙ্গলবার (১৭ মে) রাত ৮টার দিকে পরশুরাম বাজারের ডাকবাংলা মোড়ে পরশুরাম থানা পুলিশ ও র‌্যাপিড একশন ব্যাটেলিয়ন( র‌্যাব) সদস্যদের এ ঘটনা ঘটে। এসময় দুই বাহিনীর সদস্যরাই সাদা পোষাকে ছিল।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রাত ৮টার দিকে সুবার বাজার থেকে একটি সাদা রঙ্গের প্রাইভেট কার পরশুরাম বাজারের ডাকবাংলা মোড়ে পৌঁছলে পরশুরাম থানার টহলরত পুলিশের একটি টিম প্রাইভেট কারটি গতিরোধ করে। কোন কিছু বুঝে উঠার আগেই প্রাইভেট কারের যাত্রীরা (র‌্যাব সদস্য) পুলিশ সদস্যদের মারধর শুরু করে। পরে পুলিশ সদস্যরা ওই গাড়ির যাত্রীদের (র‌্যাব সদস্য) পাল্টা মারধর করে। এসময় চার পুলিশ সদস্য গুরুতর আহত হলে তাদেরকে উদ্ধার করে পরশুরাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

আহতরা হলেন, পরশুরাম থানার সহকারী উপ পরিদর্শক (এএসআই) মো. রেজাউল করিম, সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মোহাম্মদ ইব্রাহিম, পুলিশ কনস্টেবল মোহাম্মদ নুরুন্নবী ও মাহবুব হোসেন। আহতদের মধ্যে দুইজন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। অপর দু’জন প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে থানায় ফিরে যায়।

পরশুরাম উপজেলা স্বাস্ব্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ইয়াছিন আলাউদ্দিন ডালিম জানান, আহতদের মধ্যে দুই জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অপর দু’জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

ফেনীর পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, গাড়ি তল্লাশি কে কেন্দ্র করে তাদের মধ্যে ভুল বুঝাবুঝি থেকে কথা কাটাকাটি হয় এতে দুই পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি হওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

এদিকে র‌্যাব-৭ সিপিসি-১ ফেনী ক্যাম্পের অধিনায়ক স্কোয়াডন লিডার আব্দুল্লাহ আল জাবের আল ইমরান বলেন, তিনি অন্য একটি অপারেশনে ব্যস্ত আছেন। পরশুরামে কি ঘটনা ঘটেছে তা তার জানা নেই।