পরশুরাম প্রতিনিধি->>

পরশুরামে গাড়ি তল্লাশিকে কেন্দ্র করে বাজারের ডাকবাংলা মোড়ে দুই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের (র‌্যাব ও পুলিশ) মারামারির ঘটনা ঘটেছে। মঙ্গলবার (১৭ মে) রাত ৮টার দিকে পরশুরাম বাজারের ডাকবাংলা মোড়ে পরশুরাম থানা পুলিশ ও র‌্যাপিড একশন ব্যাটেলিয়ন( র‌্যাব) সদস্যদের এ ঘটনা ঘটে। এসময় দুই বাহিনীর সদস্যরাই সাদা পোষাকে ছিল বলে জানায় পরশুরাম মডেল থানার সেকেন্ড অফিসার উপ-পরিদর্শক (এসআই) হারুন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রাত ৮টার দিকে সুবার বাজার থেকে একটি সাদা রঙ্গের প্রাইভেট কার পরশুরাম বাজারের ডাকবাংলা মোড়ে পৌঁছলে পরশুরাম থানার টহলরত পুলিশের একটি টিম প্রাইভেট কারটি গতিরোধ করে। কোন কিছু বুঝে উঠার আগেই প্রাইভেট কারের যাত্রীরা (র‌্যাব সদস্য) পুলিশ সদস্যদের মারধর শুরু করে। পরে পুলিশ সদস্যরা ওই গাড়ির যাত্রীদের (র‌্যাব সদস্য) পাল্টা মারধর করে। এসময় চার পুলিশ সদস্য গুরুতর আহত হলে স্থানীয় আব্দুল মান্নান, মো. সুমন নামে দুই ব্যক্তি তাদেরকে উদ্ধার করে পরশুরাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

আহতরা হলেন, পরশুরাম থানার সহকারী উপ পরিদর্শক (এএসআই) মো. রেজাউল করিম, সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মোহাম্মদ ইব্রাহিম, পুলিশ কনস্টেবল মোহাম্মদ নুরুন্নবী ও মাহবুব হোসেন। আহতদের মধ্যে দুইজন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। অপর দু’জন প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে থানায় ফিরে যায়।

পরশুরাম মডেল থানার সেকেন্ড অফিসার উপ পরিদর্শক (এসআই) হারুন জানান, রাতে সু্বার বাজার থেকে একটি সাদা রঙ্গের প্রাইভেটকার কে খানার পুলিশের সদস্যরা বাজারের ডাকবাংলা মোড়ে সিগন্যাল দিলে গাড়ি থেকে নেমে র‌্যাব সদস্যরা তাদের মারধর করে। পুলিশ পরিচয় দেওয়ার পরও তারা বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে ও ফের মারধর করে। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে পরশুরাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।

পরশুরাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক আব্দুল খালেক জানান, স্থানীয়রা আহত চার পুলিশ সদস্যকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নিয়ে এসেছে। তারা কিভাবে আহত হয়েছেন তা তিনি নিশ্চিত নয় বলেও জানান।

পরশুরাম উপজেলা স্বাস্ব্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ইয়াছিন আলাউদ্দিন ডালিম জানান, আহতদের মধ্যে দুই জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অপর দু’জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

পরশুরাম মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাইফুল ইসলাম বলেন, কোনো মারামারির ঘটনা ঘটেনি। ভুল বোঝাবুঝি হয়েছে। র‍্যাবের সাদা গাড়িটি সহ সদস্যরা এখন থানায় আছেন। আমার উভয় পক্ষের সাথে কথা বলছি।

পরশুরামের দায়িত্বপ্রাপ্ত (ভারপ্রাপ্ত) সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (সোনাগাজী সার্কেল) মো. মাশকুর রহমান বলেন, অনাকাঙ্খিত ঘটনাটি নিয়ে উভয় পক্ষের উদ্ধর্তন কর্মকর্তাদের সাথে পরশুরাম থানায় রাতে বৈঠক চলছে। বিষয়টি দ্রুত সমাধানের ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

ফেনীর পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, গাড়ি তল্লাশি কে কেন্দ্র করে তাদের মধ্যে ভুল বুঝাবুঝি থেকে কথা কাটাকাটি হয় এতে দুই পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি হওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

র‌্যাব-৭ সিপিসি-১ ফেনী ক্যাম্পের কন্ট্রোল রুমের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে ফোন করা হলে তিনি পরশুরামে কি ঘটনা ঘটেছে সে সম্পর্কে অবগত নয় বলে জানান। এসময় তার পরিচয় জানতে চাওয়া হলে তিনি উর্দ্ধতন কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করতে পরামর্শ দেন।

এদিকে র‌্যাব-৭ সিপিসি-১ ফেনী ক্যাম্পের অধিনায়ক স্কোয়াডন লিডার আব্দুল্লাহ আল জাবের আল ইমরান বলেন, তিনি অন্য একটি অপারেশনে ব্যস্ত আছেন। পরশুরামে কি ঘটনা ঘটেছে তা তার জানা নেই।