শহর প্রতিনিধি->>

ফেনী লিও ক্লাব ব্যতিক্রমী ঈদ উদযাপন করেছে। পবিবারের বাইরে থাকা ভাসমান মানুষদের ঈদ আনন্দের কথা চিন্তা করে ঈদের দিন শহরতলীর শহীদ মিনারের পাশে ভাসমান মানুষদের নিয়ে সেমাই-মিষ্টিমুখ করে ফেনী লিও ক্লাব।

ক্লাব প্রেসিডেন্ট লিও মুরাদ হাসনাত রাফীর নেতৃত্বে চার ঘন্টা ব্যাপী আয়োজনে উপস্থিত লিও সদস্যরা ভাসমান মানুষদের মুখে ঈদের হাসি ফোটানোর নিমিত্তে একসাথে তাতক্ষনিত রান্না করা সেমাই খাওয়া আনন্দ আড্ডায় মেতে উঠেন।

ক্লাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট লিও মিথিলা রুম্মান বলেন, পথশিশু ও ভাসমান মানুষের কথা ভেবে ক্লাবের পক্ষ থেকে ঈদের দিন ব্যতিক্রম আয়োজন করা হয়েছে। ভ্রাম্যমাণ চুলা নিয়ে তাতক্ষনিক রান্না করে গরম গরম সেমাই খাওয়াতে চেষ্টা করেছি।

বৃষ্টির মধ্যে গরম সেমাই খেতে পেরে পথশিশু শরিফ উচ্ছাস প্রকাশ করেছে বলেন, ‘মেলদিন পর ছেমাই খাইছি। ভাইয়ারা অনেক ভালা, আমাগোরে ফ্রিতে ছেমাই খাওয়াইছে।’

করিম মিয়া নামে এক রংপুরের দিনমুজুর বলেন, ‘ঈদের দিন কাজের সন্ধানে ভোরে ট্রাংক রোডে আসছিলাম। ঈদের দিন হওয়ায় কেউ কাজে না নেওয়ায় হতাশ হয়ে শহীদ মিনানের পাশে বসি আছিলাম। হঠাৎ কিছু ছেলে-মেয়ে আমাকে রান্না করা সেমাই খাওয়াইছে। অনেক খুশি হইছি।’

এসময় ক্লাবের ভাইস প্রেসিডেন্ট লিও জহির উদ্দিন, লিও মিথিলা রুম্মান, জয়েন্ট সেক্রেটারি লিও মো. সবুজ, লিও নিশাদ আহমেদ, সার্জেন্ট লিও খাইরুজ্জামান, লিও আরমান শাওন, লিও ইনান, লিও প্রভাত, লিও আবরার ফাইয়াজ রামীমসহ ক্লাবের অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

ক্লাব প্রেসিডেন্ট লিও মুরাদ হাসনাত রাফী বলেন, ব্যতিক্রমের বাহাদুরিতে নয়। সেবার মানসিকতায় ঈদের দিনে ভাসমান মানুষদের নিয়েই সেমাই-মিষ্টিমুখের আয়োজন করেছে জেলার ঐতিহ্যবাহী সংগঠন ফেনী লিও ক্লাব।