আন্তর্জাতিক ডেস্ক->>
বিশ্বের ৯৯টি দেশে একযোগে বড় ধরনের সাইবার হামলা হয়েছে। এতে আক্রান্ত হয়েছে স্বাস্থ্য ও টেলিকমসহ বিভিন্ন খাতের বেশ কিছু বড় প্রতিষ্ঠানের নেটওয়ার্ক। এটি এক ধরনের র‌্যানসমওয়্যার’র (ম্যালওয়ার) মাধ্যমে করা হয়েছে।

একটি ম্যালওয়্যার এসব সংস্থার নেটওয়ার্কের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে কম্পিউটার স্ক্রিনে একটি বার্তা দিচ্ছে। কম্পিউটারের নিয়ন্ত্রণ ফিরে পেতে দাবি করা হয়েছে পণ।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম সিএনএনকে ক্যাসপারেস্কি ল্যাবের প্রধান নিরাপত্তা গবেষক কার্ট বামগার্টনার বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত মেশিনে ছয় ঘণ্টা টাকা দিতে হয় এবং প্রতি কয়েক ঘণ্টার জন্য মুক্তিপণ বেড়ে যায়।

এতে যুক্তরাজ্যের ১৬টি ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিস (এনএইচএস) সংস্থাকে আক্রমণ করা হয়েছে। এদের মধ্যে কয়েকজন হাসপাতালের বহির্বিভাগে নিয়োগকর্তার নিয়োগ বাতিল করেছেন। যদি সম্ভব হয় তবে মানুষকে জরুরি বিভাগগুলো এড়াতে বলা হয়েছে। হামলার ঘটনায় রোগীদের ভোগান্তিতে পড়তে হতে পারে বলে জানিয়েছেন এক কর্মকর্তা।

শুক্রবার বাংলাদেশ সময় মধ্যরাত পর্যন্ত যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র, চীন, রাশিয়া, স্পেন, ইটালি, ভিয়েতনাম, তাইওয়ানসহ বিভিন্ন দেশে এ ‘র‌্যানসমওয়্যার’ ছড়িয়ে পড়ার খবর জানিয়েছে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম।

সাইবার সিকিউরিটি ফোর্স অব্যাভ বলছে, ৯৯টি দেশে ৭৫ হাজারেরও বেশি হামলা হয়েছে। বেশিরভাগ হামলা হয়েছে রাশিয়া, ইউক্রেন এবং তাইওয়ানে।

সাইবার নিরাপত্তা ফার্ম অ্যাভাস্ট জানিয়েছে, ৯৯টি দেশে এখন পর্যন্ত অন্তত ৭৫ হাজার হামলার তথ্য পাওয়া গেছে, যা ‘ওয়ানাক্রাই’ এবং ‘ভ্যারিয়েন্টস’ নামে পরিচিতি দেওয়া হয়েছে। এরইমধ্যে বিষয়টিকে ‘হিউজ’ বলে আখ্যা দিয়েছেন ‍অ্যাভাস্টের কর্মকর্তা জ্যাকুব ক্রুসকি।

এদিকে সাইবার হামলার শিকার বিভিন্ন দেশের নাগরিকরা এ সংক্রান্ত ছবি সামাজিক মাধ্যমে তুলে ধরছেন। বেশ কয়েকটি স্প্যানিশ ফার্মের মধ্যে টেলিকম জায়ান্ট টেলিফোনিকাও হামলার শিকারের খবর জানিয়েছে।

এছাড়া পর্তুগাল টেলিকম, মাল্টিন্যাশনাল কুরিয়ার সার্ভিস প্রতিষ্ঠান ফেডএক্স, রাশিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম মোবাইল ফোন নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠান মেগাফনও সাইবার হামলার কবলে পড়েছে।

সূত্র: বাংলা নিউজ