ফুলগাজী প্রতিনিধি->>

ফুলগাজীতে প্রতিবছর বর্ষা মৌসুমে উজানের পানিতে বাঁধ ভেঙে বাজার ডুবে যাওয়া ঠেকাতে ৮০ লাখ টাকা ব্যয়ে পানি নিষ্কাশনের ৫২০ মিটার নালার কাজের উদ্বোধন করা হয়েছে। ফুলগাজী উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান মো. আবদুল আলিম মজুমদার এর উদ্বোধন করেন।

জানা যায়, ফুলগাজী বাজারের তিন পাশে মুহুরি নদী ঘেঁষা। বর্ষা মৌসুমে নদীর পানি সামান্য বাড়লেও বাজারে পানি ঢুকে পড়ে। কিন্তু পানি নিষ্কাশনের কোনো ব্যবস্থা না থাকায় বাজারে প্রায়ই পানি জমে থাকে। এতে বাজারের মুদির দোকান, কাপড়ের দোকান ও ওষুধের দোকানসহ অধিকাংশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পানির নিচে তলিয়ে যায়। ফলে বাজারের ব্যবসায়ীদের প্রতিবছরই বর্ষার মৌসুমে লাখ লাখ টাকার লোকসান গুনতে হয়।

বাজারের ব্যবসায়ীরাসহ স্থানীয় বাসিন্দাদের দীর্ঘদিনের দাবিতে ৮০ লাখ টাকা ব্যয়ে পানি নিষ্কাশনের নালার উদ্বোধন করা হয়েছে। শুক্রবার দুপুরে উদ্বোধন করা হয়। ফুলগাজী বাজারের উত্তর পাশে বোর্ড অফিস সংলগ্ন মুহুরি নদীর মুখ থেকে পাইলট হাই স্কুলের দক্ষিণ পাশে যুব উন্নয়নের সীমানা পর্যন্ত প্রায় ৫২০ মিটার পানি নিষ্কাশনের এ নালাটি নির্মাণ করা হবে।

উদ্বোধনের সময় ফুলগাজী সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. সেলিম ও উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার মুহাম্মদ আশিফ মাহমুদসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

স্থানীয়রা জানায়, ফুলগাজী বাজারে সামান্য বৃষ্টিতেই প্রায়ই হাঁটুর উপরে পানি জমে থাকে। পানি নিষ্কাশনের কোনো ব্যবস্থা ছিল না। এতে দীর্ঘদিন যাবৎ ব্যবসায়ীরাসহ বাজারে আসা মানুষের ভোগান্তিতে দিন পার করেন। বৃষ্টির একটু বেশি হলেই ফেনী-বিলোনিয়া মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যেত।

পানি নিষ্কাশনের নালাটি নির্মাণের কাজ পেয়েছেন এলাহী এন্টারপ্রাইজের মালিক কাজী ইয়াকুব আলী বাবুল। তিনি বলেন, এর মাধ্যমে ফুলগাজীবাসীর দীর্ঘদিনের দুঃখ-দুর্দশার অবসান হতে যাচ্ছে।

উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আবদুল আলিম মজুমদার বলেন, ‘পানি ওঠার কারণে ব্যবসায়ীদের প্রতিবছর লাখ লাখ টাকার লোকসান গুনতে হচ্ছে। ফলে নালাটি নির্মাণের জন্য বাজেট বরাদ্দের ব্যবস্থা করি। বর্ষা মৌসুমের আগেই কাজটি শেষ হবে বলে আশা করি। ফলে আর পানিতে তলিয়ে যাবে না ফুলগাজী বাজার।’

Sharing is caring!