নিজস্ব প্রতিনিধি->>

ছাগলনাইয়া ও পরশুরাম উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের বিভিন্ন কেন্দ্রে ঘুরে দেখা যায় পুরুষ বুথগুলো ভোটারশূন্য থাকায় নির্বাচনের কর্মকর্তারা অলস সময় পার করছেন। অন্যদিকে নারী বুথের সামনে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে রোদে বিড়ম্বনা পোহাচ্ছেন ভোটাররা। রোববার ভোটগ্রহণ শুরুর পর থেকে এমন চিত্র দেখা গেছে বিভিন্ন কেন্দ্রে।

পাঠান নগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার আলাউদ্দিন সকাল ১০ টার দিকে জানান, নারী বুথে একশোর ওপর ভোট কাস্টিং হয়েছে। কিন্তু পুরুষ বুথে ৩০-৫০টির বেশি কাস্টিং হয়েছে। পুরুষ ভোটার তুলনামূলক কম রয়েছে বলে স্বীকার করেন তিনি।

পাঠান নগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোটার আফাজ মাহমুদ জানান, পুরুষরা কর্মের কারণে প্রবাসে থাকেন। বিএনপি জামায়াত অধ্যুষিত এসব এলাকায় বাইরে থাকা ভোটাররা এলাকায় আসেননি। যার কারণে পুরুষ ভোটার কম। নারী ভোটার বেশি।

পরশুরাম উপজেলার ৩ ইউপিতে ২৬টি কেন্দ্রে ৫৭ হাজার ১০৯ জন ভোটার রয়েছে। একক প্রার্থী থাকায় ১ জন চেয়ারম্যান ও ৫ জন সদস্য এবং ৪ জন সংরক্ষিত মহিলা সদস্য বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

ছাগলনাইয়া উপজেলার ৫ ইউপিতে মোট ১ লাখ ১৬ হাজার ৮৪৩ জন ভোটার রয়েছেন। ৪৬টি কেন্দ্রের ২৯৩টি বুথে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোটাররা ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের লক্ষ্যে পুলিশ ও আনসার বাহিনীর পাশাপাশি বিপুল পরিমাণ র্যাব, বিজিবি ও স্ট্রাইকিং ফোর্স নিয়োজিত রয়েছে। এছাড়াও ২০ পুলিশ সদস্যের শরীরে ‘বডি অন ক্যামেরা’ ব্যবহার করা হচ্ছে।

Sharing is caring!