পরশুরাম প্রতিনিধি->>

পরশুরামে স্কুল ছুটি শেষে বাড়ী ফেরার পথে দশম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীর শ্লীলতাহানি অভিযোগে ফারুক ওরফে শিপন নামের এক বখাটে যুবককে আটক করেছে স্থানীয়রা। সেমাবার দুপুরে উপজেলার মির্জানগর ইউনিয়নে এঘটনা ঘটে। মঙ্গলবার সকালে ওই স্কুল ছাত্রীর মা বিষয়টি উপজেলার মির্জানগর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. নুরুজ্জামান ভুট্টো ও পরশুরাম মডেল থানার ওসি মু.খালেদ হোসেনের কাছে অভিযোগ দেন।

বখাটে ফারুক উপজেলার মির্জানগর ইউনিয়নের উত্তর কাউতলী গ্রামের মো. হানিফ মিয়ার ছেলে।

পুলিশ জানায়, ওই স্কুল ছাত্রী ছুটি শেষে সোমবার দুপুরে বাড়ী ফেরার পথে স্থানীয় বখাটে ফারুক মধুগ্রাম নামক স্থানে রাস্তায় তাঁর পথরোধ করে তাকে শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে। একপর্যায়ে ছাত্রীর শরীরে স্পর্ষকাতর স্থানসহ বিভিন্ন স্থানে মুখ দিয়ে জোর পূর্বক আঘাত করে। এসময় ওই স্কুল ছাত্রীর চিৎকার শুনে ওই এলাকার আমেনা আক্তারসহ পাশ্ববর্তী বাড়ী থেকে কয়েকজন মহিলা এগিয়ে এসে বখাটের হাত থেকে স্কুল ছাত্রীকে উদ্ধার করে।

ওই স্কুল শিক্ষার্থীর মা জানান, মেয়ের মুখে ও বুকে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। সোমবার দুপুরের পর থেকে তার মেয়ে কান্নাকাটি করছে। ওই ঘটনার পর থেকে সে কিছুই খায়নি।

কালিকাপুর বাশারত উল্যাহ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো ইলিয়াছ জানান, দীর্ঘদিন ধরে ওই শিক্ষার্থীকে বখাটে ফারুক উত্তক্ত করে আসছিলো। মঙ্গলবার সকালেও সেই স্কুলে গেলে শিক্ষার্থী ও স্থানীয়দের সহযোগিতায় তাকে আটক করা হয়। পুলিশ তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

কালিকাপুর বাশারত উল্যাহ উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও মির্জানগর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো নুরুজ্জামান ভুট্টো জানান, আটককৃত শিপন দীর্ঘদিন দরে ওই ছাত্রীকে উত্তক্ত করছিল।

পরশুরাম থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. মোস্তাক জানান, ওই শিক্ষার্থীর বাবা শাহজাহান মজুমদার বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। ওই মামলায় ফারুককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। পরে তাকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

Sharing is caring!