পরশুরাম প্রতিনিধি->>

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ইমরানুর রহমান (৬৫) নামে পরশুরামের ষাটোর্ধ বৃদ্ধ নিহত হয়েছে। শুক্রবার রাতে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। নিহত ইমরানুর রহমান পরশুরাম পৌর শহরের সলিয়া গ্রামের বাসিন্দা। তিনি দীর্ঘদিন স্বপরিবারে ফেনী শহরের একাডেমী এলাকায় বসবাস করছিলেন। নিহত ইমরানুর রহমান বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন (বিজিবি)’র বিগ্রেডিয়ার জেনারেল (অব.) মিরন রহমানের ছোট ভাই।

পরিবার সূত্র জানায়, ইমরানুর রহমান অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহ থেকে কাশিতে ভুগছিলেন। গত ১১ অক্টোবর করোনা পরীক্ষার জন্য ফেনী সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নমুনা দেন। পরদিন নোয়াখালীর আবদুল মালেক উকিল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাব থেকে প্রেরিত প্রতিবেদনে পজেটিভ শনাক্ত হয়। এর পর থেকে তিনি বাড়িতে আইসোলেশনে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন তিনি। এর মধ্যে ১৩ অক্টোবর তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার সন্ধ্যায় মারা যান ইমরানুর রহমান।

ইমরানুর রহমানের ছেলে ব্যাংক কর্মকর্তা আজিজুর রহমান মুহিত জানান, শনিবার বাদ জোহর নামাজে জানাযা শেষে সলিয়া এলাকার পারিবারিক কবরস্থানে তার বাবার মরদেহ দাফন করা হয়।

পরশুরাম উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবদুল খালেক মামুন জানান, কোভিডে আক্রান্ত হয়ে পরশুরামে ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। উপজেলায় এ পর্যন্ত ৭২৬ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। এর মধ্যে ১৩৬ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। ইতোমধ্যে সুস্থ হয়েছে ১২৮ জন।

জেলা সিভিল সার্জন ডা. মীর মোবারক হোসাইন দিগন্ত জানায়,শনিবার পর্যন্ত জেলায় ১ হাজার ৯৩৬ জনের করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ১ হাজার ৭১২ জন সুস্থ হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ৪১ জন। এদের মধ্যে ৩৫ জন পুরুষ ও ৬ জন নারী রয়েছে। মৃতদের মধ্যে ১২ জন সোনাগাজীর, ১১ জন ফেনী সদর’র, ৭ জন দাগনভূঞা, ৬ জন ছাগলনাইয়া ও ৫ জন পরশুরাম উপজেলার বাসিন্দা।

Sharing is caring!