দাগনভূঞা প্রতিনিধি->>

দাগনভূঞায় আধুনিক মানের মসজিদ তৈরি করেছেন জয়নাল আবেদীন মামুন। শুক্রবার দুপুরে নন্দিত মুফাসসির মাওলানা রফিক উল্যাহ আফসারী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থেকে মসজিদ উদ্বোধন করেন।

উদ্বোধন উপলক্ষে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন দাগনভূঞা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান দিদারুল কবির রতন, রামনগর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মাষ্টার কামাল উদ্দিন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন মসজিদের সভাপতি ও দাগনভূঞা উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন মামুন।

এসময় উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান শাহীন মুন্সি, রাজাপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আ.ন.ম কাশেদুল হক বাবর, চরমজলিশপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এমএ হোসেন, পূর্বচন্দ্রপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মাসুদ রায়হান, ইয়াকুবপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আবুল ফোরকান বুলবুল, মাতুভূঞা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল মামুন, ফেনী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সহ-সভাপতি ইসমাইল হোসেন লিটন প্রমুখ।

দাগনভূঞায় বাইতুল মামুর এসি মসজিদের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেছেন, একেবারে প্রত্যন্ত অঞ্চলে মনোরম পরিবেশে কোলাহল মুক্ত জায়গায় দৃষ্টিনন্দন মসজিদে ইবাদত বন্দেগী করতে মুসল্লীদের হৃদয়ে আল্লাহর সৃষ্টির রহস্য সম্পর্কে অনেক বেশী জাড়া জাগবে। গ্রামে সুন্দর ডিজাইনে মসজিদ তৈরি করায় দূরদূরান্ত থেকে হাজারো মুসল্লী ভিড় জমায়। দাগনভূঞা উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন মামুন ব্যক্তিগত অর্থায়নে মসজিদের নির্মান কাজ সম্পন্ন করেন।

মসজিদের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি জয়নাল আবেদীন মামুন বলেন, ভালো কাজে প্রতিযোগীতা অনেক ভালো। গ্রামে এমন মসজিদ নির্মান করার মাধ্যমে বিত্তবান মানুষদের এগিয়ে আসার সুযোগ সৃষ্টি অন্যতম কারন। মসজিদ আল্লাহর ঘর। মুসলমানদের ধর্মীয় পবিত্র উত্তম জায়গা। মসজিদ যত বেশী নির্মান হবে মানুষ তত বেশী আল্লাহর ইবাদত বন্দেগীতে ব্যস্ত থাকবে।

তিনি আরো বলেন, প্রায় ৮০ শতাংশ নয়নাভিরাম এ জায়গায় পর্যায়ক্রমে হাফেজিয়া মাদরাসা সহ বিভিন্ন ধর্মীয় কার্যক্রম চালু করা হবে। দ্বিতীয় তলায় মহিলাদের জন্য নামাজের ব্যবস্থা করা হবে। এভাবে সমাজের বিত্তবানরা একজনের দেখা দেখিতে ভালো কাজগুলোতে এগিয়ে আসবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী, সাংবাদিক, সমাজসেবক সহ সাধারণ মুসল্লীরা উপস্থিত ছিলেন।

Sharing is caring!