সাংস্কৃতিক প্রতিবেদক->>

ফেনীতে বাউল সম্রাট লালন শাহ’র ১৩০তম তিরোধান দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জেলা শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুজজামান।

জেলা শিল্পকলা একাডেমীর আয়োজনে ও জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোছাঃ সুমনী আক্তারের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মো: গোলাম জাকারিয়া, ফেনী সরকারি কলেজে ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. মোস্তাক হোসাইন, জেলা কালচারাল অফিসার জান্নাত আরা যুথি, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট ফেনী জেলার সহ-সভাপতি জাহেদ হোসেন বাবলু।

আবৃত্তিশিল্পী এম.এফ রহমান মিলনের সঞ্চালনায় সভায় লালন শাহ’র জীবনী নিয়ে প্রবন্ধ পাঠ করেন এডভোকেট সাইফুল্ল্যাহ শাহীন। প্রবন্ধ নিয়ে আলোচনা করেন শাবিহ মাহমুদ।

জেলা প্রশাসক বলেন, লালন ছিলেন একজন অক্ষর জ্ঞানহীন মানুষ। জাত-ধর্মের চেয়ে মানবধর্ম ছিল লালনের কাছে সবচেয়ে বড়। তিনি কখনও নিজে কোন ধর্মীয় আদর্শের অনুসারী তা প্রকাশ করেনি। তবু তিনি তার আধ্যাত্মিক চিন্তা দিয়ে যা বলে গেছেন, তা বর্তমানে অনেকে গবেষণা করেও বলতে পারবেন না।

জেলা প্রশাসক আরও বলেন, একজন অক্ষর জ্ঞানহীন মানুষ আমাদের চিন্তা চেতনার অনেক খোরাক দিয়েছেন। লালন কত গান আমাদের উপহার দিয়েছেন। যার মধ্যে বিবিসির জরিপে শ্রেষ্ঠ ২০টি গানের মধ্যে লালন শাহ’র গানও স্থান পেয়েছে।

আলোচনা সভা শেষে জেলা শিল্পকলা একাডেমির শিল্পীদের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে ফেনী জেলা প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারাসহ ফেনীর বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের শিল্পীরা উপস্থিত ছিলেন।

Sharing is caring!