দাগনভূঞা প্রতিনিধি->>

দাগনভূঞা উপজেলার সিন্দুরপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আজাদুল ইসলাম আজাদকে পিটিয়ে আহত করেছে দুর্বৃত্তরা। সোমবার সন্ধ্যায় ইউনিয়নের কামাল মেম্বারের বাড়ির সামনে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদশী ও দলীয় সূত্র জানায়, সিন্দুরপুর ইউনিয়নের চুন্দারপুরে ইট চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিরোধের জের ধরে দু’পক্ষের মাঝে উত্তেজনা বিরাজ করে। সোমবার সন্ধ্যায় সিন্দুরপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আজাদুল ইসলাম আজাদ একটি পক্ষ নিয়ে ওই এলাকায় গেলে লিটু ও আরাফাতের নেতৃত্বে প্রতিপক্ষের লোকজন তাঁর উপর আতর্কিত হামলা চালায়। এসময় তাকে পিটিয়ে ও খুঁচিয়ে গুরুত্বর আহত করে। পরে আশপাশের লোকজন আহত যুবলীগ নেতা আজাদকে উদ্ধার করে ফেনী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।

ফেনী জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগে চিকিৎসারত অবস্থায় আজাদ জানান, সন্ধ্যায় চন্দারপুর গ্রাম হয়ে দাগনভূঞা যাওয়ার সময় কামাল মেম্বার বাড়ির সম্মুখে জাকির নামে একজন আমাকে চা খাওয়ার জন্য ডাকে। পরক্ষণে ১০/১২ টি মোটর সাইকেল যোগে এসে সন্ত্রাসীরা আমার উপর অতর্কিত হামলা চালায়। সন্ত্রাসী দলে লিটু, ফারুক, ছদর, সহ ১৫/২০ জন ছিল।

ফেনী জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা (ইএমও) জানান, আহতের শরীরের বিভিন্ন স্থানে রড দিয়ে খুঁচিয়ে রক্তাক্ত করা হয়েছে। মাথায় আঘাত রয়েছে।

ফেনী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ইকবাল হোসেন ভূঞা জানান, অবস্থা আশঙ্কাজনক অবস্থায় উন্নত চিকিৎসার জন্য তাঁকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আবুল ফোরকান বুলবুল হামলাকারীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তারের দাবি জানান।

উপজেলায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন মামুন জানান,যুবলীগ নেতা আজাদুল ইসলাম আজাদ ইট চোরের পক্ষ নেওয়ায় স্থানীয় লোকজন তার উপর হামলা চালায়।

কোরাইশমুন্সি পুলিশ ফাঁঁড়ি ইনচার্জ মোজাম্মেল হক জানান, সিন্দুরপুর ইউপির চুন্দরপুরে ইট চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের মাঝে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

দাগনভূঁঞা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আসলাম সিকাদার জানান, আজাদের হামলার ঘটনা শুনেছি তবে এখনও কেউ থানায় অভিযোগ করেনি। অভিযোগ করলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Sharing is caring!