শহর প্রতিনিধি->>

হেফাজতে ইসলামের ফেনী জেলা সভাপতি, জহিরিয়া ও ফেনী কোর্ট মসজিদের সাবেক খতিব মাওলানা আবুল কাশেমের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। রবিবার বাদ আসর শহরের মিজান ময়দানে তার জানাযার নামায অনুষ্ঠিত হয়। জানাযা শেষে তাকে ধর্মপুর ইউনিয়নের পদুয়া গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

জানাযায় ইমামতি করেন মরহুমের মেঝ ছেলে মাওলানা কামরুল ইসলাম। জানাযা পূর্ব সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ফেনী পৌরসভার মেয়র হাজী আলাউদ্দিন, ওলামা বাজার মাদরাসার মোহতামিম মাওলানা নুরুল ইসলাম আদীব, মরহুমের ছোট ভাই মাওলানা শহীদুল ইসলাম ও বড় ছেলে তৌহিদুল ইসলাম, হেফাজতে ইসলামের জেলা উপদেষ্টা মুফতী আহমদ উল্যাহ, জেলা সেক্রেটারী সাইফুদ্দীন কাসেমী, সহ-সভাপতি মাওলানা ইউসুফ, সহ-সেক্রেটারী মুফতি ইলিয়াস ও মাওলানা আবুল কাশেম, জহিরিয়া মসজিদ পরিচালনা কমিটির সহ-সভাপতি আবুল কাশেম, হেফাজতের জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা ওমর ফারুক ও সহ-সাংগঠনিক মাওলানা জালাল উদ্দিন ফারুক, সাংবাদিক মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন প্রমুখ। জানাযায় মরহুমের সহকর্মীরাসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার বিপুল সংখ্যক মানুষ অংশ নেন।

মরহুমের বড় ছেলে তৌহিদুল ইসলাম ভূঞা জানান, রোববার ভোরের দিকে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান মাওলানা আবুল কাশেম। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর। তিনি দীর্ঘদিন ধরে ব্লাড ক্যান্সারে ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ৪ ছেলে, ৪ মেয়ে, নাতি-নাতনীসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন।

মাওলানা আবুল কাশেম জীবদ্দশায় ফেনী পৌর ইমাম কমিটির সভাপতি ছিলেন। এর আগে দীর্ঘদিন ফেনী কোর্ট মসজিদের খতিব ছিলেন। এছাড়া তিনি ছিলেন পদুয়া কাশেমুল উলূম মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ও মোঃ আলী বাজার ঈদগাহের সম্মানিত খতিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

Sharing is caring!