শহর প্রতিনিধি->>

ফেনীতে ‘ধর্ষণ ও বিচারহীনতার বিরুদ্ধে বাংলাদেশ’ শীর্ষক প্রগতিশীল রাজনৈতিক, ছাত্রসংগঠনগুলোর ধর্ষণ ও নিপিড়ন বিরোধী লং মার্চে হামলার ঘটনায় ছাত্রলীগের সম্পৃক্ততা নেই বলে দাবি করেছেন ফেনী জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এম সালাউদ্দিন ফিরোজ ও সাধারণ সম্পাদক জাবেদ হায়দার জর্জ। বরং ধর্ষণ ও নিপিড়নের বিরুদ্ধে আয়োজিত লংমার্চ কে ছাত্রলীগ সমর্থন জানিয়েছেন।

জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সালাউদ্দিন ফিরোজ লিখিত বক্তব্যে জানান, ধর্ষণ বিরোধী আন্দোলনের নামে তারা রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিল করার পায়তারা করছে। আন্দোলনকারীরা ফেনীতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ফেনী ২ আসনের সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারীর ছবি সম্বলিত পেস্টুনে কালিমা লেপন ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য লেখার কারণে স্থানীয় জনসাধারণের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। ছাত্রলীগ ছবি অবমাননার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করে।

তবে আন্দোলনকারীদের উপর অনাকাঙ্ক্ষিত হামলার সাথে আওয়ামী ছাত্রলীগ-যুবলীগের কেউ জড়িত নয় বলে জানান তিনি।

এছাড়া ধর্ষণ, নিপিড়নের বিরুদ্ধে ছাত্রলীগ সর্বদা সোচ্চার রয়েছে জানিয়ে ছাত্রলীগ সভাপতি বলেন এরইমধ্যে ধর্ষণের প্রতিবাদে ফেনীতে ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে আলোক প্রজ্জ্বলন সহ বিভিন্ন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে জেলা ছাত্রলীগের জিয়া উদ্দিন বাবলু, আবদুর শুক্কুর মানিক, তোফায়েল তপুসহ বিভিন্ন ইউনিটের অর্ধশতাধিক নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, শাহবাগ থেকে অনুষ্ঠিত হওয়া ধর্ষণ ও নিপিড়ন বিরোধী গণজাগরণের লক্ষ্যে আয়োজিত লংমার্চ টি ফেনীতে পৌঁছে শহীদ মিনারে একটি সমাবেশ করে। সমাবেশে সরকার ও পুলিশের বিরুদ্ধে করুচিপূর্ণ মন্তব্য করে বক্তব্য ও স্লোগান দিলে পুলিশের সাথে বাগবিতণ্ডার সৃষ্টি হয়। সমাবেশ শেষ করে নোয়াখালী যাওয়ার পথে তাদের উপর ও তাদের বহনকারী গাড়িতে হামলা করে দূর্বৃত্তরা।

Sharing is caring!