সদর প্রতিনিধি->>

ফেনীর ফতেহপুরে বাস-ট্রেন সংঘর্ষে ৩ জন নিহতের ঘটনায় গেইটম্যানকে বরখাস্ত করা হয়েছে। ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে ৫ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে।

রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর ফেনী স্টেশন ইউনিটের সাব ইন্সপেক্টর মো. মোয়াজ্জেম হোসেন জানান, দূর্ঘনার কারণ জানতে গেইটম্যান আবুল কালামকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। সে নিজেকে নির্দোষ দাবি করে বলেন, সে মহাসড়কের অপরপাশে দক্ষিণ দিকে রেলবার আগে নামায়। কারণ ওদিক থেকে অন্যান্য গাড়ি আসছিল। কিন্তু উত্তর দিক হতে আসা বাসটি রেলবার ফেলবার আগেই লাইনের উপর উঠে যায়। ট্রেনটি বাসের পেছনের অংশে ধাক্কা দিলে তা একপাশে কাত হয়ে পড়ে যায়।

মো. মোয়াজ্জেম হোসেন আরো জানান, ঘটনায় ওই রেলক্রসিংয়ের গেইটম্যান আবুল কালামকে বরখাস্ত করা হয়েছে। তিনি জানান, এ ঘটনায় লাকসাম জিআরপি থানায় মামলায় দায়ের করা হয়েছে।

এদিকে ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে ৫ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। কমিটিতে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের ডিএন-১ আব্দুল হানিফ মুকুল, ডিএসটিই জাহেদ আরেফিন পাটোয়ারী তন্ময়, ডিটিও স্নেহাশীষ দাশ গুপ্ত, পাহাড়তলীর ডিএমও তন্ময় দত্ত ও ডিএনএ (লোকো) ওয়াহিদুর রহমানকে সদস্য করা হয়েছে। তদন্ত কমিটি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। কমিটিকে তিন কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

অপরদিকে রোববার বিকেল পর্যন্ত নিহত তিন জনের মধ্যে এক জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। নিহত মো. সাদ্দাম হোসেন কুমিল্লার সুয়াবাজারের কৃষ্ণপুরের তাজুল ইসলামের ছেলে। তার মরদেহসহ তিনজনের মরদেহ ফেনী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, রোববার ভোরে ঢাকা থেকে চট্টগ্রামগামী ঢাকা মেইল ট্রেন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ফতেহপুর রেলক্রসিং এলাকায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে চট্টগ্রামগামী এনআর ট্রাভেলস্ একটি বাসকে ধাক্কা দেয়। এতে বাসটি দুমড়ে-মুচরে ঘটনাস্থলে ২ জন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে আরো একজনসহ তিনজন নিহত ও অন্তত ১২ জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে আশংকাজনক অবস্থায় একজনকে ঢাকা ও আরেকজনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

Sharing is caring!