ছাগলনাইয়া প্রতিনিধি->>

ছাগলনাইয়া উপজেলায় কিশোরীকে ধর্ষণ ও এ কর্মকাণ্ডে সহায়তার অভিযোগে এক ইউপি সদস্যসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাতে উপজেরার বিভিন্ন স্থান থেকে আসামীদের তাদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

গ্রেফতার পাঁচজন হলেন- ফজলুল করিম বাবু, রেজিয়া বেগম, রাবেয়া আক্তার মুক্তা, আবুল হোসেন ও নুরুল করিম চৌধুরী ওরফে সবুজ মেম্বার। সবুজ উপজেলার মহামায়া ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য।

ছাগলনাইয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মাহবুবুর রহমান জানান, কয়েক মাস আগে এক কিশোরীকে (১৭) ধর্ষণ করে একই ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের ফজলুল করিম বাবু। পরে ঘটনাটি জানাজানি হলে স্থানীয় ইউপি মেম্বার সবুজসহ অন্যরা সালিশ-মীমাংসার মাধ্যমে বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করেন।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে ওই কিশোরী বাদি হয়ে  নারী ও শিশু দমন নির্যাতন আইনের ৯ (১)/৩০ ধারায় ছাগলনাইয়া থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলায় প্রধান আসামি ফজলুল করিম বাবুর বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও অন্যদের বিরুদ্ধে ধর্ষণে সহায়তার অভিযোগ করেছেন ওই নারী।


ছাগলনাইয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ জানান,  ওই মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তাদের থানায় আনা হয়েছিল। পরে জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার সঙ্গে তাদের সম্পৃক্ততা পাওয়ায় তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বুধবার তাদের ফেনীর আদালতে হাজির করা হবে।

স্থানীয় সূত্রে জানায়, গ্রেপ্তার আবুল হোসেন ওয়ার্ড় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। নুরুল করিম চৌধুরী ওরফে সবুজ মেম্বার ছাগলনাইয়া স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। এর আগেও তার বিরুদ্ধে আদালতে ধর্ষণের অভিযোগে করে দ্বিতীয় স্ত্রীর স্বীকৃতি পেয়েছেন এক নারী।

Sharing is caring!