শহর প্রতিনিধি->>

ফেনী শহরের একাডেমীর বনানী পাড়া এলাকায় বস্তিতে ৩ বছরের শিশু ধর্ষণের ঘটনায় শুক্রবার থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। শিশুটির মা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করে। এদিকে শুক্রবার সকালে ফেনী জেনারেল হাসপাতালে নির্যাতিত শিশুটির ডাক্তারি পরীক্ষা করা হয়। এদিকে মামলা দায়ের করার পর শিশুটির মা কে ঘর ছাড়ার হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ ওঠেছে।

শিশুটির মা অভিযোগ করে বলেন, ‘আমি থানায় জিডি করে আসার পর থেকে আমাদের বাসার মহিলারা আমাকে মারার হুমকি দিচ্ছে। আমার নামে উল্টো মিথ্যা মামলা দেবার ভয় দেখাচ্ছে। বস্তির ম্যানেজার আমাকে বাসা ছেড়ে চলে যেতে বলছে।’ তিনি আরও বলেন,‘আমাকে ৩ হাজার টাকা প্রদানের প্রস্তাব করছে, যা আমি পুলিশকে বলি আমার অভিযোগ মিথ্যা।’

ফেনী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মো. ইকবাল হোসেন ভূঁইয়া জানান, শুক্রবার সকালে শিশুর ডাক্তারি পরীক্ষা করা হয়েছে। পরীক্ষাটি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হবে। প্রতিবেদন পেলে বিস্তারিত বলা যাবে।

ফেনী মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ওমর হায়দার জানান, শিশু ধর্ষণের ঘটনায় শিশুটির মা বাদী হয়ে অভিযুক্ত শহীদুল ইসলামকে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ফেনী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

ফেনী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলমগীর হোসেন জানান, আমরা আলামত সংগ্রহ করেছি, এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে। ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর থেকে অভিযুক্ত শহীদুল ইসলাম পলাতক রয়েছে। অভিযুক্ত আসামীকে ধরার চেষ্টাও চালাচ্ছে পুলিশ।

প্রসঙ্গত, শহরের একাডেমীর বনানী পাড়া এলাকার পুরাতন রেললাইন সংলগ্ন ডুবাই ট্রাস্টের বস্তিতে গত প্রায় ১৫ দিন আগে দুপুরে ৩ বছরের শিশু কন্যাকে একা পেয়ে শহীদুল ইসলাম নামের এক রাজমিস্ত্রী ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ করে শিশুটির মা ।এ ঘটনার জন্য গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বাবা-মাসহ পরিবারের সদস্যদের নিয়ে শহীদুল তার কাছে ক্ষমা চান এবং তিন হাজার টাকায় ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা চালায়। ওই দিন রাতে থানায় বিষয়টি জানালে পরদিন গত বুধবার সকালে পুলিশ শিশুটির জবানবন্দি গ্রহণ ও পরনের প্যান্ট উদ্ধার করে। স্বামী পরিত্যক্তা ওই নারী ৪ কন্যা সন্তানের জননী। তিনি ভাষা শহীদ সালাম স্টেডিয়াম সংলগ্ন ফারুক হোটেলের সামনে ভ্যানগাড়িতে সবজি বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করেন।

Sharing is caring!