নিজস্ব প্রতিবেদক->>

ফেনীতে বিএসটিআই অনুমোদন না থাকা, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ, পঁচা ও বাসি খাদ্য, ক্ষতিকর রং মেশানো, মেয়াদোত্তীর্ণ পণ্য এবং মোড়কে মিথ্যা তথ্য প্রচারের দায়ে ফেনীতে তিন প্রতিষ্ঠানকে ৩১ লাখ টাকা জরিমানা করেছে র‌্যাব পরিচালিত ভ্রাম্যমান আদালত। বুধবার বিকেলে থেকে রাত পর্যন্ত শহরতলীর কালীপালে রসমেলা ফুড প্রোডাক্ট, যমুনা বেকারী এবং মধুপুরে সনি আইসক্রিম ফ্যাক্টরীতে র‌্যাব-৩ এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু  অভিযান পরিচালনা করে জরিমানার পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানগুলো সিলগালা ও চার কর্মচারীর কারাদন্ড দিয়েছে।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসু জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৩ এর ভ্রাম্যমান আদালত শহরতলীর কালীপালে রসমেলা ফুড প্রোডাক্ট ফ্যক্টিরিতে অভিযান চালায়। এসময় ফ্যক্টিরিতে উৎপাদিত পণ্যের কোনটিতেই ব্যাচ নম্বর, মার্ক, উৎপাদন এবং মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ দেখতে না পেয়ে নিরাপদ খাদ্য আইন ২০১৩ এর একাধিক ধারায় রসমেলা ফুড প্রোডক্টস লি. এর মালিক হাসান আলীর ১৩ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। এসময় ওই প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী মোঃ সাইদুল হক (সহিদ), মোঃ ফজলুল করিম ও মিলন কান্তি ভৌমিককে আটক করে কারখানাটি সিলগালা করে দেয়া হয়।

জরিমানার টাকা দিতে অপারোগতা প্রকাশ করায় আটক কর্মচারী মোঃ সাইদুল হক (সহিদ),  মোঃ ফজলুল করিম ও মিলন কান্তি ভৌমিককে তিন মাস করে বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করে।

এদিকে একই অপরাধে যমুনা বেকারীর মালিক মো. সোহেলের ১০ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। প্রতিষ্ঠানটি হতে চার হাজার ৫শ কেজি বিভিন্ন ধরনের বিস্কুট জব্দ করে ধ্বংস করা হয়েছে। এসময় মোঃ আলাউদ্দিন নামে এক কর্মচারীকে আটক করে কারখানা সিলগালা করে দেয়া হয়। জরিমানার টাকা দিতে অপারোগতা প্রকাশ করায় আটক কর্মচারী আলা উদ্দিনকে তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করে।

অপরদিকে শহরের মধুপুরে সনি আইসক্রীম প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালায় র‌্যাবের ভ্রাম্যমান আদালত। এসময় বিএসটিআই অনুমোদন না থাকা, ব্যবহৃত কাঁচামালের বৈধতা দেখাতে না পারা, নোংরা পরিবেশে উৎপাদনের দায়ে প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক কামরুল আলমকে আট লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

অভিযানে র‌্যাব-৭ ফেনী ক্যাম্পের ভারপ্রাপ্ত কোম্পানী অধিনায়ক সহকারি পুলিশ সুপার মো. জুনায়েদ জাহেদীসহ র‌্যাব-৭ সদস্যরা ও জেলা স্যানেটারি ইন্সপেক্টর এবং নিরাপদ খাদ্য পরিদর্শক অমলিন্দ ভান্ডার উপস্থিত ছিলেন।

Sharing is caring!