সোনাগাজী প্রতিনিধি->>

সোনাগাজীতে নিখোঁজের ১৩দিন পর স্কুল ছাত্র রিদোয়ান আহমেদকে (১৫) চট্টগ্রাম থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে বিকাশের মাধ্যমে ২৪ হাজার টাকা দিয়ে চট্টগ্রামের পুরাতন রেলওয়ে স্টেশন এলাকা থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়। রিদোয়ান সোনাগাজী পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের মহি উদ্দিনের ছেলে। সে স্থানীয় আল হেলাল একাডেমীর সপ্তম শ্রেণি ছাত্র। রিদোয়ন স্বেচ্ছায় আত্মগোপনে গিয়ে বাবার কাছ থেকে টাকা আদায় করতে চট্টগ্রামে যেয়ে অপহরণের নাটক সাজায় বলে পুলিশ দাবি করেছে।

সোনাগাজী মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. সাইফুদ্দিন বলেন, চট্টগ্রাম থেকে উদ্ধারের পর রিদোয়নকে সোনাগাজী মডেল থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। আইনি প্রক্রিয়া শেষ তাকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

রিদোয়ানের বাবা মহি উদ্দিন বলেন, গত ২৯ আগষ্ট বিকেলে পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের চর এলাকার নিজ বাড়ি থেকে বের হয়ে খেলতে যায় রিদোয়ান। সন্ধ্যায় পর সে বাসায় না ফিরলে স্বজনরা বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করে। নিখোঁজের পর থেকে পরিবারের লোকজন রিদোয়ানের খোঁজ পেতে ফেনী, ঢাকা, চট্টগ্রামসহ সম্ভাব্য সকল আত্মীয় স্বজনদের বাসা-বাড়িতে সন্ধান চালায়। কোথাও তার খোঁজ না পেয়ে গত ৫ সেপ্টেম্বর শনিবার রাতে সোনাগাজী মডেল থানায় তিনি বাদি হয়ে নিখোঁজের ডায়েরি করেন।

তিনি বলেন, গত রবিবার বিকালে ও রাতে দুটি নম্বর থেকে ছেলেকে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য মুঠোফোনে এক লোক তার কাছে ৩০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবী করেন। সর্বশেষ মঙ্গলবার রাতে আরও একটি নম্বর থেকে তার কাছে বিকাশে ২৪ হাজার টাকা চাওয়া হয়। বিষয়টি তিনি পুলিশকে জানিয়ে নম্বরগুলো দেন।

সোনাগাজী মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ সাজেদুল ইসলাম জানান, রিদোয়ানের বাবার কাছে মুক্তিপণ বাবত টাকা চওয়ার বিকাশ নম্বরগুলো তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে যাচাই করে অবস্থান ও মালিকের নাম নিশ্চিত করা হয়।

তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার সকালে সোনাগাজী মডেল থানার এসআই মো. সাইফুদ্দিনের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল চট্টগ্রামের পুরাতন রেলওয়ে স্টেশন এলাকায় গিয়ে অবস্থান নেয়। পরে তারা মুক্তিপণ বাবত বিকাশ নম্বরে ২৪ হাজার টাকা পাঠান। এসময় টাকা আনতে গিয়ে পুলিশের হাতে ধরা পড়ে স্কুলছাত্র রিদোয়ান। পরে তাকে চট্টগ্রামের কোতোয়ালী থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে জিজ্ঞাসাবাদে রিদোয়ান স্থানীয় এক যুবকের যোগসাজসে চট্টগ্রামে গিয়ে আত্মগোপন করে বাবার কাছ থেকে টাকা আদায় করার জন্য অপহরনের নাটক সাজিয়ে মুঠোফোনে তার বাবার কাছে মুক্তিপণ দাবী করে বলে পুলিশকে জানায়।

Sharing is caring!