ঢাকা অফিস->>

সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে দেশি ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান গ্লোব ফার্মাসিউটিক্যালসের সহযোগী প্রতিষ্ঠান গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড আবিষ্কৃত করোনা ভাইরাসের ভ্যাকসিন (টিকা) চূড়ান্ত পর্যায়ের হিউম্যান ট্রায়ালের জন্য আবেদন করা হবে। গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ডিপার্টমেন্টের প্রধান ড. আসিফ মাহমুদ এ তথ্য জানান।

ড. আসিফ মাহমুদ বলেন, আমাদের তৈরি ভ্যাকসিনের অ্যানিমাল ট্রায়ালের তথ্য পেতে শুরু করেছি। আশা করছি এ মাসের মাঝামাঝি সময়ে প্রেস কনফারেন্স করে বলতে পারবো, আমরা আমাদের তথ্য পেয়েছি। এখন আমরা হিউম্যান ট্রায়ালের জন্য আবেদন করবো।

‘দ্বিতীয় পর্যায়ের অ্যানিমাল ট্রায়ালের যে তথ্য আমরা পাচ্ছি, তা বেশ আশাপ্রদ। আমরা যেমনটা আশা করেছি, ঠিক তেমন তথ্যই পাচ্ছি। সেপ্টেম্বর মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে আমাদের সব ডাটা চলে আসবে। তখন আমরা প্রেস কনফারেন্সে আমাদের প্রাপ্ত তথ্য জানাবো। পাবলিকেশনের প্রস্তুতিও নিচ্ছি আমরা। তথ্যগুলো ফাইলিং করতে কয়েকদিন সময় লাগবে। এরপর একটা থার্ড পার্টির (সিআরও) মাধ্যমে আমরা বিএমআরসির কাছে আবেদন করবো হিউম্যান ট্রায়ালের। ’

বড় কোন ধরনের প্রতিবন্ধকতার শিকার না হলে আগামী ডিসেম্বর মাসের মধ্যে দেশি করোনা ভাইরাসের টিকা বাজারে আনতে পারবেন বলেও তিনি জুলাই মাসে বাংলানিউজকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে আশা প্রকাশ করেছিলেন।

গ্লোব বায়োটেক লিমিটেডের সিওও ড. নাজনীন সুলতানা এ বিষয়ে বলেন, কোনো টিকা বা ড্রাগ মানবদেহে প্রয়োগের আগে সেটা কতটুকু নিরাপদ সেটা দেখতে হয়। আমাদের করোনা টিকার অ্যানিমাল ট্রায়াল আর কয়েকদিনের মধ্যেই শেষ হবে। এরপর আমরা সমস্ত ডাটা কম্পাইল করে বিএমআরসিতে জমা দিয়ে হিউম্যান ট্রায়ালের জন্য আবেদন করবো।

Sharing is caring!