দুলাল তালুকদার->>

পথশিশুদেরও ভালো খাবার খেতে ইচ্ছা করে। ইচ্ছে করে পার্কে ঘুরতে। কিন্তু অনেকের বাবা-মা বা নিকটাত্মীয় বা সামর্থ্য না থাকায় সে প্রত্যাশা কখনো তাদের পূরণ হয় না। তবে এবার ফেনীর এমনসব শিশুকে ভালো খাবার ও পার্কে ঘুরানোর ব্যতিক্রমী আয়োজন করেছে ফেনীর স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সহায় । ফেনী জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য ‘আনন্দ সময়’ নামে এই আয়োজনে শিশুরা নেচে-গেয়ে মেতে ছিলো সারাদিন।

জানা যায়, ফেনীর রেলস্টেশন এলাকায় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সহায়ের মাধ্যমে পরিচালিত ‘প্রত্যয় পাঠশালা’র অর্ধশতাধিক শিশুদের রবিবার সকালে শহর থেকে গাড়িতে চড়িয়ে মহিপাল সার্কিট হাউজ এলাকায় অবস্থিত গোল্ডেন শিশু পার্কে আনা হয়। সেখানে শিশুদের বিভিন্ন ধরণের নাস্তাসহ উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয় এবং তারা পার্কের বিভিন্ন রাইডে আনন্দ উল্লাসে মেতে ওঠে।

পথশিশুদের সাথে মিলেমিশে আনন্দ-উল্লাসে একাকার হয়ে যান জেলা প্রশাসন, স্বাস্থ্য বিভাগ ও পুলিশ বিভাগের শীর্ষ কর্মকর্তগণ। এই সময় তারা শিশুদের সাথে ট্রেনভ্রমণসহ বিভিন্ন রাইডে ভ্রমণ করেন।

পরে বিকেলে ফেনী জেলা প্রশাসক মোঃ ওয়াহিদুজ্জামানের সভাপতিত্বে ও সহায়ের উপদেষ্টা সাংবাদিক বখতেয়ার মুন্নার সঞ্চালনায় আয়োজিত অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে অনুভূতি ব্যক্ত করেন ফেনী সিভিল সার্জন ডা: মীর মোশাররফ হোসেন দীগন্ত, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো: গোলাম জাকারিয়া, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোছা: সুমনী আক্তার, এডিশনাল এসপি (সদর সার্কেল) আতোয়ার রহমান, ২৫০ শয্যা জেলা সদর হাসপাতালের তত্বাবধায় আবুল খায়ের মিয়াজী, ফেনী সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা জকর্মকর্তা ডা: এস এম রানা, ফেনী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: অঅলমগীর হোসেন, ফেনী পৌরসভার প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম স্বপন মিয়াজী, ফেনী প্রেসক্লাবের সভাপতি ও ডিবিসি নিউজের ফেনী প্রতিনিধি মুহাম্মদ আবু তাহের ভ’ঁইয়া, সংগঠন সহায়’র সভাপতি মন্জিলা মিমি ।

এই সময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ফেনী প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আসাদুজ্জামান দারা, ফেনী রিপোর্টার ইউনিটের সাবেক সভাপতি আরিফুল আমিন রেজভী, সময় টিভির রিপোর্টার আতিয়ার হাওলাদার সজল, সহায়’র সহ-সভাপতি জুলহাস তালুকদার, ইয়াসির আরাফাত রুবেল, সাধারন সম্পাদক মুহাম্মদ দুলাল তালুকদার।

সহায়ের আয়োজকরা বলছেন, এতে অবহেলিত এসব শিশুর মানসিক বিকাশ ঘটবে।

সংগঠনের সভাপতি মন্জিলা মিমি জানান, এসব শিশু অভাবের মধ্যেই বেড়ে উঠেছে। এদের কারও বাবা নেই, মা দিনমজুরের কাজ করেন। আবার কারও বাবা রিকশা চালান। কারো মা-বাবা কেউই নেই। তাই সাধ থাকলেও সামর্থ্য নেই। এ কারণে অসহায় এসব শিশুর জন্য একবেলা ভালো খাওয়ার আয়োজন করা হয়েছে। শিশুরা সেজেগুজে যোগ দিয়েছে অনুষ্ঠানে। আমরা মনে করি, এতে তাদের মানসিক বিকাশ ঘটবে।

সংগঠনের সাধারন সম্পাদক মুহাম্মদ দুলাল তালুকদার জানান, এই অনুষ্ঠান ছাড়াও করোনাকালে সংগঠনের পক্ষ থেকে সচেতনতামূলক প্রচার, মানসিক ভারসাম্যহীন লোকদের জন্য খাবার, শহরের বস্তি এলাকায় সহায়’র পক্ষ থেকে খাদ্য সহায়তাও দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, এমন অনুষ্ঠানের শিশুদের আনার উদেশ্য হলো, এতে তারা নিজেদের নতুনভাবে গড়ে তোলার প্রেরণা পাবে।

গোল্ডেন শিশু পার্কের ব্যবস্থপনা পরিচালক শাহজাহান সাজু পথশিশুদের পার্কে ভ্রমণ ও বিভিন্ন রাইডে ভ্রমণের সুযোগ দিয়ে এই ব্যক্রিমধর্মী আয়োজনে সহায়তা করেন।

Sharing is caring!