পরশুরাম প্রতিনিধি->>

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে পরশুরামে এক নারীসহ দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর ১৩/১৪ দিন পর রোগীরা সুস্থ্য হয়েছেন কিনা জানতে স্বাস্থ্য বিভাগ ফোন দিলে পরিবারের পক্ষ থেকে মৃত্যুর বিষয়টি জানো হয়েছে।
জেলা সিভিল সার্জন ডা. মীর মোবারক হোসাইন দিগন্ত জানান, জেলায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্র জানায়, পরশুরাম উপজেলার উত্তর গুথুমা এলাকার চৌধুরী বাড়ীর বাসিন্দা ফরিদা আক্তার (৫৫) অসুস্থ্য হলে গত ১০ আগস্ট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যেয়ে নমুনা প্রদান করেন। পরদিন ১১ আগস্ট নোয়াখালীর আবদুল মালেক উকিল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ল্যাব থেকে প্রেরিত প্রতিবেদনে তার করোনা শনাক্ত হয়। চিকিৎসকের পরামর্শে তিনি বাড়িতে চিকিৎসা নিচ্ছেলেন। করোনা শনাক্তের দু’দিন পর গত ১৩ আগস্ট তিনি নিজ বাড়ীতে মারা যান।

অপরদিকে উপজেলার বক্সমাহমুদ ইউনিয়নের টেটেশ্বর গ্রামের বাসিন্দা ও খন্ডল হাই এলাকার ব্যবসায়ী আবদুর রব (৬০) গত ৮ আগস্ট নমুনা দেন। এর দু’দিন পর ১০ আগস্ট নোয়াখালীর আবদুল মালেক উকিল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ল্যাব থেকে প্রেরিত প্রতিবেদনে তার করোনা শনাক্ত হয়। চিকিৎসকের পরামর্শে তিনি বাড়িতে চিকিৎসা নিচ্ছেলেন। করোনা শনাক্তের দু’দিন পর গত ১২ আগস্ট হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তার মৃত্যু হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবদুল খালেক মামুন জানান, দুই কোভিড আক্রান্ত রোগীর মৃত্যুর তথ্য পরিবার থেকে জানানো হয়নি। খোঁজখবর নিতে ফোন দেয়া হলে মৃত্যুর বিষয়টি জানতে পারেন।

প্রসঙ্গত, ফেনীতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে জেলায় সিভিল সার্জনসহ মৃত ৩৭ জনের মধ্যে ৩২ জন পুরুষ ও ৫ জন নারী। মৃতদের মধ্যে ১২ জন সোনাগাজীর, ১০ জন ফেনী সদর’র, ৭ জন দাগনভূঞা, ৪ জন ছাগলনাইয়া ও ৪ জন পরশুরাম উপজেলার বাসিন্দা।

Sharing is caring!