আদালত প্রতিবেদক->>
ফুলগাজীতে ব্যবসায়ীকে জিম্মি করে কোটি টাকার জমি রেজিষ্ট্রি ও আসবাবপত্র লুটের ঘটনায় আদালতে মামলা দায়ের করেছে ক্ষতিগ্রস্ত নজরুল ইসলাম। রবিবার সিনিয়ির জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ধ্রুব জ্যোতি পালের আদালতে মামলা দায়ের করলে আদালত মামলাটি তদন্তে জন্য ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট (সিআইডি) কে নির্দেশ দেন।

বাদি পক্ষের আইনজীবী ব্যারিষ্টার মহিউদ্দিন হানিফ জানান, ফুলগাজীর উপজেলার বসন্তপুর গ্রামের সিএন্ডএফ ব্যবসায়ী নজরুল ইসলামকে ব্যবসা করতে হলে মাসিক চাঁদা দিতে চাপ প্রয়োগ করে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ প্রভাবশালী মহল। তিনি অপারগতা প্রকাশ করলে গত ১৭ জুন প্রকাশ্য দিবালোকে তারই ভগ্নিপতি ছাগলনাইয়ার দক্ষিন সতর গ্রামের আরিফিন আজাদ চৌধুরী বাদল, বোন দিলজাহান আক্তার, গিয়াস উদ্দিন সুমন ও জমিরউদ্দিন পাটোয়ারি সহ অজ্ঞাত ৮-১০ জনের সংঘবদ্ধ একটি চক্র নজরুলের ঘরে প্রবেশ করে তার মা সহ পরিবারের সদস্যদের অস্ত্রের মুখে জিম্মী করে। এসময় তারা ঘরে থাকা ব্যবসায়ীক ও সম্পত্তির দলিল, গুরুত্বপূর্ণ কাগজপত্র, স্বর্ণালংকার, টেলিভিশন, ফ্রিজসহ মূল্যবান মালামাল ট্রাক ভর্তি করে লুটে নেয়।

তিনি আরো জানান, মালামাল লুটের পাশাপাশি নজরুলকে একটি কালো গ্লাসের মাইক্রোবাস যোগে অপহরণ করে ঢাকার কেরানীগঞ্জ নিয়ে যায়। সেখানে ব্যবসায়ী নজরুলের নিজ মালিকীয় বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার সাড়ে ৬ কাঠার জমিটি রেজিষ্ট্রি করে দিতে চাপ দেয়। টানা হুমকি-ধমকির একপর্যায়ে রাজি হলে পরদিন ১৮ জুন দুপুরে সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে নিয়ে সম্পত্তি রেজিষ্ট্রি করে নেন। এসময় অপহরণকারীরা এ ঘটনায় মুখ খুললে স্বপরিবারে প্রাণনাশের হুমকি দেয়।

ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম জানান, ঘটনায় জড়িতরা প্রভাবশালী হওয়ার প্রতিনিয়ত হুমকি-ধমকি অব্যাহত রেখেছে। এতে করে মামলা দায়ের করতে বিলম্ব হয়েছে।

অভিযোগ ও মামলার বিষয়টি নিয়ে অভিযুক্ত আরেফিন আজাদ বাদল জানান, ব্যাপারটি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে সালিশে নিষ্পত্তি করা হয়েছিল।

ব্যবসায়ী নজরুল ইসলামের বড় বোন ও আরেফিন আজাদ বাদলের স্ত্রী দিল জাহান আক্তার বলেন, বিষয়টি পারিবারিক হওয়ায় লিখিত কোন নিষ্পত্তির কাগজপত্র করা হয় নি। তাছাড়া অপহরণের মতো কোন ঘটনা ঘটেনি।

Sharing is caring!