বিশেষে প্রতিনিধি->
করোনা ভাইেোসের সৃষ্ট প্রাদুর্ভাবে যেখানে এবারের ঈদ-উল ফিতর এর উৎসব অনেকটা ফিকে সেখানে ঈদের পূর্বের দিনে ফেনী-২ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন হাজারী মা ও ভাইয়ে আকষ্মিক মৃত্যুতে ফেনীতে আ.লীগ নেতাদের ঈদ যেন শোকাবহ।

ঈদের নামাজ শেষে সকাল থেকে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা সাংসদের বাড়িতে যেয়ে সহমর্মিতা জানানোর চেষ্টা করেও বাধার মুখে ফেরত যেতে হয়েছে। সামাজিক দূরত্বের কথা চিন্তা করে নেতা-কর্মীদের ঘরে বসে সাংসদের মা ও ভাইয়ের জন্য দোয়া করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে নেতা-কর্মীদের। অনেক নেতাকে দেখা গেছে কারো পাঞ্জাবি পরিধান করে শোক প্রকাশ করতে।

এদিকে সমবেদনা জানাতে সকালে শহরের মাষ্টার পাড়া লমি হাজারী বাড়ীতে আসেন প্রধানমন্ত্রীর সাবেক প্রটোকল অফিসার ও ফেনী ইউনিভার্সিটি ট্রাস্ট্রি বোর্ডের চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী নাসিম। তিনি সাংসদের পারিবারিক কবরস্থান ‘জান্নাতুল বাকি’তে যেয়ে সদ্য প্রয়াত মা-ভাই সহ তার বাবা কমিশনার জয়নাল আবদীনের কবরও জিয়ারত করেন। এসময় জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুজ্জামান, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুর রহমান বিকম, ফেনী পৌরসভার মেয়র হাজী আলাউদ্দিন, জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) চৌধুরী আহমেদ রিয়াদ আজীজ, ঢাকাস্থ ফেনী সমিতির সভাপতি শেখ আবদুল্লাহসহ কয়েকজন সিনিয়র নেতা উপস্থিত ছিলেন।

ফেনী সদর উপজেলার পাঁচগাছিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মানিক জানান, সাংসদ নিজাম হাজারীর মলিন মুখের দিকে তাকানো যাচ্ছে না। তিনি শোকে বিহবল। ঈদের দিনে এতবড় শোক কাটিয়ে উঠতে আল্লাহ উনাকে তৌফিক দান করুক এই কমনা করছি।

দাগনভূঞা উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা যুবলীগের সভাপতি দিদারুল কবির রতন জানান, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও ফেনী-২ আসনের সাংসদ নিজাম উদ্দিন হাজারীর মা ও ভাইয়ের একই দিনে মৃত্যুবরণ করায়। জেলায় নেতাকর্মিদের মাঝে কোন ঈদের আমেজ নাই। পুরো জেলায় নেতাকর্মিরা শোকাহত।আল্লাহ যেন নিজাম ভাইকে এ শোক সহ্য করার তৌফিক দেয়।

প্রসঙ্গত: গত রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় জসিম উদ্দিন হাজারী (৫৮)। শনিবার রাতে বুকে ব্যথা অনুভব করলে রাত ১১টার দিকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সকালে ছেলের মৃত্যুর খবর পেয়ে শোক সইতে না পেরে বেলা ১২টার দিকে রাজধানীর ধানমন্ডির বড় মেয়ের বাসায় হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন মা দেলআফরোজ বেগম (৮০)। রাত সাড়ে ৯টায় ফেনী সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে পৃথক জানাযা শেষে মাষ্টারপাড়ার লমি হাজারী বাড়ীর পারিবারিক কবরস্থান জান্নাতুল বাকিতে তাদের দাফন করা হয়।

Sharing is caring!