বিশেষ প্রতিনিধি->>
মুসলমানদের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল ফিতর উৎযাপিত হবে সোমবার। করোনাভাইরাসের প্রদুর্ভাবের কারনে এবার ফেনীতে কোথাও খোলা ময়দানে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হচ্ছে না। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে জেলায় ঈদের প্রধান ও প্রথম জামাত সকাল ৮টায় ফেনী বড় জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হবে। একই মসজিদে দ্বিতীয় জামাত সকাল ৯টায় অনুষ্ঠিত হবে।
ফেনী বড় জামে মসজিদে ছাড়াও শহরের মধ্যে জহিরিয়া জামে মসজিদে প্রথম জামাত সকাল ৭টায় ও দ্বিতীয় জামাত সকাল ৯টায়, আলীয়া মাদ্রাসা জামে মসজিদে প্রথম জামাত সকাল পৌনে ৮টায় ও দ্বিতীয় জামাত সাকাল পৌনে ৯টায়, কোর্ট মসজিদে সকাল ৭টায়, সার্কিট হাউজ জামে মসজিদ সকাল ৮টায়, পাবলিক হেলথ জামে মসজিদে সকাল সাড়ে ৮টায়, সিভির সার্জন মসজিদে সকাল সোয়া ৭টায়, উপজেলা মসজিদে মকাল সাড়ে ৮টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে।
জেলা শহরের পাশাপাশি ৬ উপজেলার বিভিন্ন সমজিদে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে নিদ্দিষ্ঠ সময়ে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে। ঈদকে কেন্দ্র করে শহর জুড়ে বাড়ানো হয়েছে অতিরিক্ত নিরাপত্তা। প্রতিটি মসজিদ এলাকায় পোষকাধারী পুলিশের পাশাপাশি থাকবে সাদা পোষাকে গোয়েন্দা পুলিশ।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন সূত্র জানায়, শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে মসজিদে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হলেও শিশু, অসুস্থ ও বয়স্করা মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় করতে পারবেন না। স্বাস্থ্যবিধি মেনে মসজিদে নামাজ আদায় করার ব্যাপারে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের অনুরোধ, ঈদের নামাজ আদায়ের সময় মসজিদে কার্পেট বেছানো যাবে না। নামাজের আগে জীবাণুনাশক রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে পরিষ্কার করে নিতে হবে। প্রয়োজনে একই মসজিদে একাধিক জামাত অনুষ্ঠিত হবে। মসজিদে নামাজ আদায় করতে হলে অবশ্যই মাস্ক পরে আসতে হবে। ঈদের নামাজ আদায় করার পর কোলাকুলি কিংবা হাত মেলানো থেকে বিরত থাকার অনুরোধ করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। সবার সুবিধার্থে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ, স্থানীয় প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নির্দেশনা মেনে চলতে মুসল্লিদের অনুরোধ করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, করোনাভাইরাসের কারনে এবারই প্রথম ফেনীর প্রধান ঈদ জামাত মিজান ময়দানে অুনষ্ঠিত হচ্ছে না।

Sharing is caring!