শহর প্রতিনিধি->>

ফেনীতে চর্ম ও যৌন রোগ বিশেষজ্ঞ ভুয়া চিকিৎসক মো. নিজাম উদ্দিনকে আটক করেছে র‌্যাব। বুধবার রাতে শহরের ট্রাংক রোডস্থ জননী ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে তাকে আটক করা হয়। মেডিকেল কলেজ কিংবা মেডিকেল বিভাগে পড়াশোনা না করে এমবিবিএস, এমডি, পিএইচডি ডিগ্রির সাইনবোর্ড ব্যবহার করে দীর্ঘ ২০ বছর চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছেন ভুয়া ডাক্তার নেজাম উদ্দিন। তার দাবি, তিনি উচ্চ মাধ্যমিক পর্যন্ত পড়াশোনা করেছেন।

র‌্যাব জানায়, দীর্ঘদিন ফেনীর বিভিন্ন স্থানে ডাক্তার উপাধি নিয়ে চিকিৎসার নামে প্রতারণা করে আসছে একটি চক্র। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার ট্রাংক রোডস্থ জননী ডায়াগনস্টিক সেন্টারে অভিযান চালায় র‌্যাব। এসময় একজন রোগীকে ব্যবস্থাপত্র প্রদান করছিলেন ফাজিলপুর ইউনিয়নের মো: ইদ্রিছের ছেলে চর্ম ও যৌন রোগ বিশেষজ্ঞ ‘ডাক্তার’ মো: নিজাম উদ্দিন। চর্ম, যৌন (সেক্স), এলার্জি, শ্বেতী, বিশেষজ্ঞ সাইন বোর্ড লাগিয়ে প্রতি রোগী থেকে ৬শ’ টাকা ফি নিতেন তিনি। এভাবে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। র‌্যাব তার কাছে চিকিৎসা বিষয়ক সনদ ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র চাইলে সে কিছুই দেখানে পারেন নি। পরে চেম্বারে তল্লাশী চালিয়ে ২টি প্যাড ও ১ টি বিপি মেশিন, ১টি স্টেথোস্কোপ, ২৮টি ফাইল কভার উদ্ধার করা হয়।
র‌্যাব-৭ ফেনী ক্যাম্পের সহকারি পুলিশ সুপার মোঃ নুরুজ্জামান জানান, আটককৃত ভুয়া ডাক্তারের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ মেডিক্যাল ও ডেন্টাল কাউন্সিল আইন ২০১০ ধারা অনযায়ী মামলা দায়ের করে ফেনী জেলার সদর থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।
তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক চিকিৎসক জানান, আটক কৃত নিজাম উদ্দিন ভারত থেকে চর্ম ও যৌন রোগের প্রশিক্ষণ সনদ নিয়েছেন। কিন্তু ওই সনদ এখনো দেশীয় স্বীকৃতি পায়নি। এ বিষয় নিয়ে উচ্চ আদালতে মামলা চলমান রয়েছে।
অভিযানে সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার ডাক্তার শরফুদ্দিন মাহমুদ উপস্থিত ছিলেন।

Sharing is caring!