নিজস্ব প্রতিবেদক->>
যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সরকার নির্ধারিত পাঠ্য বইয়ের বাহিরে বই পাঠ্য করছে সেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হবে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক মো: ওয়াহিদুজজামান। রবিবার সকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা উন্নয়ন ও সমন্বয় সভায় সভাপতির বক্তব্যে কমিটির সভাপতি ও জেলা প্রশাসক এমন কথা বলেন।
তিনি বলেন, স্কুলগুলোতে পাঠ্য বইয়ের বাহিরে অন্য বই পাঠ্য করা হয়েছি কিনা সেটি তদারকী করতে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের পরিদর্শনের জন্য ইতোমধ্যে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একই সাথে অবৈধ গাইড বই ও নোট বই বিক্রির সঙ্গে যারা যুক্ত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থ নেওয়া হবে বলেও সভায় সিদ্ধান্ত হয়।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ও কমিটির সদস্য সচিব মোছা: সুমনী আক্তারের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন সিভিল সার্জন ডা. মো: আব্দুল মোমেন, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুর রহমান বি.কম, পরশুরাম উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন মজুমদার, ফুলগাজী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল আলিম,

সোনাগাজী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জহির উদ্দিন মাহমুদ লিপটন, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাসরীন সুলতানা, সোনাগাজী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অজিত দেব, দাগনভূঞা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রবিউল হাসান, সোনাগাজী সরকারী কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মুহাম্মদ মহিউদ্দীন চৌধুরী, মহিপাল সরকারী কলেজের সহযোগী অধ্যাপক মো: আজিজুর রহমান, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা কাজী সলিম উল্লাহ, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো: নুরুল ইসলাম, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক মো: মন্জুরুল আলম, শহর ব্যবসায়ী সমিতির সাধারন সম্পাদক পারভেজুল ইসলাম হাজারী প্রমুখ।

সভায় জেলা প্রশাসক আরো বলেন, খাল দখলকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা অব্যাহত রয়েছে। দাউদপুর খাল, খাজা আহম্মদ লেক ও রাজবাড়ী এসি ল্যান্ড অফিস সংলগ্ন জায়গা অবৈধ দখলদার মুক্ত করতে শীঘ্রই ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হবে।
ওয়াহিদুজজামন বলেন, বাখরাবাদ গ্যাসের অবৈধ সংযোগ ব্যবহারকারী গ্রাহকদের বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসনের সহযোগিতা নিয়ে অভিযান পরিচালনা করতে হবে। প্রয়োজনে জেল-জরিমানার নির্দেশনা প্রদান করেন।
সভায় জেলা উন্নয়ন ও সমন্বয় সভার নির্ধারিত কর্মকর্তা ও সংশ্লিষ্ঠ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

Sharing is caring!