শহর প্রতিনিধি->>
ধর্মপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নুর উদ্দিন জাহাঙ্গীর রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হয়েছে দাবী করে সংবাদ সম্মেলন করেছে পরিবার। শনিবার দুপুরে শহরের একটি রেষ্টুরেন্টে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তেব্য জাহাঙ্গীরের বাবা হাজী মোঃ ছাদেক বলেন, ‘একটি মহলের স্বার্থ হাসিল ও রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হয়েছেন তার ছেলে নুর উদ্দিন জাহাঙ্গীর’।

তিনি বলেন, শুক্রবার সকাল ১১ টায় আমার পাশের বাড়ীর বিয়ের অনুষ্ঠান থেকে সাদা পোষাকে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা তাকে গ্রেফতার করে আমার বাড়িতে নিয়ে আসে। তাকে মাইক্রোবাসে বসিয়ের রেখে পরিবারের সদস্যদের একটি রুমে আটকে রেখে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা আমার বসত ঘরে ব্যাপক তল্লাশী করে। ঘরে অবৈধ কিছু না পেয়ে তাদের এক সদস্য গাড়ী থেকে ২টি ব্যাডমিন্টন র‌্যাকেটের ব্যাগ ভর্তি অস্ত্র বের করে বাড়ীর সামনে কাচারী ঘরের দরজায় রেখে তারা ছবি তোলে। আমার বড় ছেলেসহ আমরা সবাই আটকৃত রুমের বারান্দায় দাঁড়িয়ে বিষয়টি দেখতে পাই।

তিনি আরও বলেন, আমার বড় ছেলে জসিম উদ্দিন এ সময় প্রতিবাদ করলে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী র‌্যাবের একজন সদস্য আটক রুম থেকে ডেকে আমার বড় ছেলেকে ব্যাপক চড় থাপ্পর মারে এবং গাড়ীতে জোর জবরদস্তি করে তুলে বসিয়ে রাখে। আমার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা আটক রুম থেকে বের হয়ে শোর চিৎকার করলে আমার বড় ছেলেকে ছেড়ে দেয়। সন্ধ্যা ৭টার সময় ফেনী র‌্যাব কর্তৃক অস্ত্রসহ আমার ছেলে নুর উদ্দিন জাহাঙ্গীরকে চালান দিয়ে ফেনী মডেল থানায় হস্তান্তর করে।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমার ২য় সন্তান নুর উদ্দিন জাহাঙ্গীর ধর্মপুর ইউনিয়নের সাবেক ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বর্তমান যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং স্থানীয় আমিন উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের পর পর তিন মেয়াদে পরিচালনা কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছে। একটি মহলের স্বার্থ হাসিল ও রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে আমার সন্তানকে দুইটি মিথ্যা মামলায় আসামী করা হয়েছে। বর্তমানে আমাদের পরিবারের সদস্যরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানান হাজী মোঃ ছাদেক। বিষয়টি সুষ্ঠ তদন্ত করে ন্যায় বিচারের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেন নুর উদ্দিন জাহাঙ্গীরের পরিবারের সদস্যরা।

সংবাদ সম্মেলনে জাহাঙ্গীরের বাবা, মা ছাড়াও স্ত্রী তাসলিমা আক্তার, ছেলে অন্তর, মেয়ে তারিন, বড় ভাই জসিম উদ্দিন, ছোট ভাই শরিফ উদ্দিনসহ পরিবারের লোকজন ও দলীয় নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, একটি বিদেশী পিস্তল, ম্যাগাজিন, গুলি ও এশাধিক দেশীয় অস্ত্রসহ আওয়ামী লীগ নেতা মো. নুরুদ্দীন জাহাঙ্গীরকে (৪৯) গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে সদর উপজেলার ধর্মপুর ইউনিয়নের আরিন্দা বাড়ী সংলগ্ন হাজী সাদেক মিয়ার বাড়ীর সামনে থেকে তাকে গ্রেপ্তার করলেও শুক্রবার রাতে এক বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাব গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছে।

র‌্যাব-৭ ফেনী ক্যাম্পের সহকারী পরিচালক ও ভারপ্রাপ্ত কোম্পানী অধিনায়ক (সহকারী পুলিশ সুপার) নুরুজ্জামান জানান, সদর উপজেলার ধর্মপুর ইউনিয়নের আরিন্দা বাড়ী এলাকায় একদল সন্ত্রাসী অস্ত্রসহ অবস্থান করছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাবের একটি দল বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে ওই স্থানে অভিযান চালায়। এসময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে অন্যরা পালিয়ে গেলেও আওয়ামী লীগ নেতা মো. নুরুদ্দীন জাহাঙ্গীরকে গ্রেপ্তার করে। পরে তার দেওয়া তথ্যেমতে ওই বাড়ির পেছন থেকে রেকেটের কভারে লুকানো অবস্থায় একটি বিদেশী পিস্তল, একটি দেশীয় তৈরী পাইপগান, পিস্তলের একটি ম্যাগাজিন, দুই রাউন্ড গুলি ও কার্তুজ, একটি রামদা ও দুটি ছোরা উদ্ধার করে র‌্যাব।

Sharing is caring!