সোনাগাজী প্রতিনিধি->>

সোনাগাজীতে মসজিদ খাল পুনঃ খনন কাজ শুরু হয়েছে। বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি) এর নোয়াখালী, ফেনী ও লক্ষ্মীপুর জেলায় ক্ষুদ্র সেচ প্রকল্পের আওতায় বুধবার দুপুরে উপজেলার চরচান্দিয়া ইউনিয়নের পূর্ব বড়ধলীতে খাল পুনঃ খনন কাজের উদ্বোধন করেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জহির উদ্দিন মাহমুদ লিপটন।

এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অজিত দেবসহ সংশ্লিষ্ঠ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিএডিসি সূত্রে জানা যায়, কৃষি জমিতে জলাবদ্ধতা নিরসন ও সেচ সুবিধা নিশ্চিত করতে সোনাগাজীর চরচান্দিয়া ইউনিয়নের মসজিদ খালের ৪ কিমি পুনঃ খনন ও সংযোগ খালের সংস্কার করা হবে। এছাড়া স্লুইসগেট ও রাস্তা নির্মাণের মাধ্যমে উপকূলীয় এলাকায় দূর্যোগ প্রশমনে সবুজ নিরাপত্তা বেষ্টনী গড়ে তোলা হবে।

উপজেলা পরিষদ জহির উদ্দিন মাহমুদ লিপটন জানান, প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে সোনাগাজী সদর ইউনিয়ন ও চরচান্দিয়া ইউনিয়নে জলাবদ্ধতা নিরসন হবে। এছাড়া মিঠা পানি সংরক্ষণ ও লোনা পানি প্রতিরোধে বাঁধ নির্মিত হলে এসব অঞ্চলে কৃষি, অর্থনীতি ও জীবনযাত্রার ব্যাপক পরিবর্তন ঘটবে। এগুলো সম্পন্ন হলে দ্রুতই এক ফসলী জমিতে বছরে তিনটি ফসল উৎপাদন করা সম্ভব হবে।

বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন বিএডিসির তথ্য অনুযায়ী, নোয়াখালীতে জলাবদ্ধতার কারণে ৪০ হাজার হেক্টর জমি এবং লবণাক্ততার কারণে আরো ৭০ হাজার হেক্টর জমি অনাবাদী পড়ে থাকে। এসব জমি চাষের আওতায় আনতে ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে প্রায় ১৫০ কোটি টাকা ব্যয়ে নোয়াখালী, ফেনী ও লক্ষ্মীপুর জেলায় চার বছর মেয়াদী ক্ষুদ্র সেচ উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নেয়া হয়। ক্ষুদ্রসেচ উন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে তিন জেলায় ৪০০ কিলোমিটার খাল পুনঃখনন এবং এর সাথে যুক্ত নানা উন্নয়নমূলক কাজ বাস্তবায়নের পথে রয়েছে।

এই প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে নোয়াখালী অঞ্চলের দীর্ঘস্থায়ী জলাবদ্ধতা নিরসন হয়ে ২০ হাজার ৩৩৮ হেক্টর জমি সেচ সুবিধার আওতায় আসবে এবং প্রতি বছর ৯১ হাজার ৫২১ মেট্রিকটন খাদ্যশস্য উৎপাদন হবে আশা করছে বিএডিসি।

Sharing is caring!